রাজধানীতে বাসে আগুনের ঘটনায় ১০ মামলা, গ্রেপ্তার ২১

1
Print Friendly, PDF & Email

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
রাজধানীতে বাসে অগ্নিসংযোগ ও নাশকতার ঘটনায় পল্টন, মতিঝিল, শাহবাগ, ভাটারা, বংশাল ও উত্তরা পূর্ব থানায় মোট ১০টি মামলা হয়েছে। পুলিশ বাদী হয়ে এসব মামলা করেছে। এসব মামলায় ২১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজ শুক্রবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গণমাধ্যম ও গণসংযোগ শাখার উপ-কমিশনার (ডিসি) ওয়ালিদ হোসেন গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘পল্টন, মতিঝিল, শাহবাগ, ভাটারা, বংশাল ও উত্তরা পূর্ব থানায় মোট ১০টি মামলা হয়েছে। বিস্ফোরক ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে এসব মামলা হয়েছে। এসব মামলায় মোট ২১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে ১০টি বাসে অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা। তবে এসব ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।

ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান আজ দুপুর ১২টার দিকে বলেন, ‘বাস পোড়ানোর ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। ৯০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত অনেককে আসামি করা হয়েছে।’

বংশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহীন ফকির বলেন, ‘বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুজনকে।’

এর আগে গতকাল রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মতিঝিল জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম জাহিদ জানান, মতিঝিল ও পল্টন মডেল থানার চারটি মামলায় ছয়-সাতজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

অপরদিকে, আজ সকালে শাহবাগ থানার ওসি মামুন অর রশিদ বলেন, ‘এখানে দুটি মামলায় ছয়জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।’

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) উত্তরা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, উত্তরায় গাড়ি পোড়ানোর ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।

ভোটকেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের মামলা:
গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা-১০ আসনের উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ ছিল। ভোটগ্রহণের মধ্যেই বেলা ১১ থেকে ১২টার ভেতরে উত্তরার ৮ নম্বর ও ১২ নম্বর সেক্টরের দুটি কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

আজ শুক্রবার দুপুরে ডিএমপির উত্তরা বিভাগের ডিসি মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘কটটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় মোট নয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

কলাবাগানে আরেকটি মামলা:
এছাড়া রাতে রাজধানীর পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স এলাকার মশাল মিছিল থেকে ছাত্রদলের দুই নেতাকর্মীকে আটক করে কলাবাগান থানা পুলিশ।

কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ চন্দ্র আজ দুপুরে বলেন, পুলিশের ওপর হামলা ও কাজে বাধাদানের অভিযোগ এনে একটি মামলা হয়েছে। সেই মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে গতকাল রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান কাছে দাবি করেছিলেন, ‘বসুন্ধরার উল্টা দিকে সন্ধ্যার পর একটি মশাল মিছিল যাচ্ছিল। সে সময় পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার চেষ্টা করলে তারা পুলিশের ওপর হামলা ও নাশকতা করার চেষ্টা করে। সে সময় পুলিশ দুজন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে।’

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এসব মামলার আসামিদের আজ আদালতে পাঠানো হবে।

যেসব স্থানে বাসে আগুন দেওয়া হয়:
পুলিশ জানিয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫ মিনিটে পল্টনের বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের উত্তর পাশে কর অঞ্চল-১৫ পার্কিং করা সরকারি গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

এরপর দুপুর ১টার দিকে মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হলের সামনে অগ্রণী ব্যাংকের স্টাফ বাসে এবং ১টা ২৫ মিনিটে রমনা হোটেলের সামনে ভিক্টর ক্লাসিক পরিবহনের চলন্ত গাড়িতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এরপর দুপুর দেড়টার দিকে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের সামনে দেওয়ান পরিবহনে, দুপুর ২টা ১০ মিনিটে বাংলাদেশ সচিবালয়ের উত্তর পাশে রজনীগন্ধা পরিবহন এবং বংশাল থানাধীন নয়াবাজার এলাকায় ২টা ২৫ মিনিটে দিশারী পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেওয়া হয়।

এছাড়া ২টা ৪৫ মিনিটে পল্টন থানাধীন পার্কলিং-এ জৈনপুরী পরিবহন, বিকেল ৩টায় মতিঝিল থানাধীন পুবালী পেট্রোল পাম্প সংলগ্ন দোতলা বিআরটিসি বাসে, সাড়ে ৪টার দিকে ভাটারা থানাধীন কোকাকোলা মোড়ে ভিক্টর ক্লাসিক পরিবহনে ও উত্তরার আজমপুরের বিএনএস সেন্টারের অপজিটে বিকেল ৫টা ৫৫ মিনিটে পরিস্থান পরিবহনে অগ্নিসংযোগ করা হয়।