মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ৬ বন্দিকে হত্যার কথা স্বীকার

23
Print Friendly, PDF & Email

রাখাইনে নিরস্ত্র ৬ বন্দিকে গুলি করে হত্যা করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। গোলযোগপূর্ণ রাজ্যের কায়ুক টান গ্রামে বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে সৈন্য ও পুলিশ শত শত লোককে আটক করে একটি স্কুলে আটকে রাখে। সামরিক বাহিনীর এক মুখপাত্র এ কথা জানান।

শুক্রবার সামরিক বাহিনীর ট্রু নিউজ ইনফর্মেশন টিমের ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাও মিন তুন বলেন, সৈন্যরা বিদ্রোহী আরাকান আর্মির সদস্যদের অনুসন্ধানের সময় প্রায় ২৭৫ জনকে আটক করেছে।

তবে গোলাগুলি সম্পর্কে পরস্পরবিরোধী ভাষ্য পাওয়া যাচ্ছে। সংশ্লিষ্ট এলাকায় সাংবাদিক ও সাহায্য সংস্থাগুলোর প্রবেশাধিকার খুবই সীমিত।

জাও মিন তুন বলেন, গভীর রাতে আটক কয়েক ব্যক্তি অস্ত্র দখলের চেষ্টা করলে নিরাপত্তা বাহিনী তাদের দিকে গুলি ছুড়তে বাধ্য হয়। আমরা তাদেরকে মৌখিকভাবে সতর্ক করেছিলাম। তারপর তাদের ছত্রভঙ্গ করার জন্য ফাঁকা গুলি করা হয়েছিল।

কিন্তু লোকজন তবুও সরে না যাওয়ায় তাদের ওপর গুলি করা হয়। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী নৃতাত্ত্বিক রাখাইন গোষ্ঠীর অধিকার আদায়কারী বিদ্রোহী সংগঠন আরাকান আর্মি (এএ) সংশ্লিষ্টতা বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এসব বন্দিকে আটক করা হয়েছিল।

আন্তর্জাতিক রেডক্রস ও মিয়ানমার রেডক্রস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তারা রাজ্যের রাজধানী সিত্তুইয়ে মারাত্মক আহত বেশ কয়েকজনকে দেখতে পেয়েছে।

এ ছাড়া একটি স্থানীয় হাসপাতালে দুজন ‘বেসামরিক’ লোককেও তারা দেখেছে। আন্তর্জাতিক রেডক্রসের মিয়ানমার যাওয়া এক প্রতিনিধি দলের প্রধান স্টিফেন স্যাকালিয়ান বলেন, সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে বেসামরিক হতাহত বাড়তে থাকায় আন্তর্জাতিক রেডক্রস উদ্বিগ্ন। তিনি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন অনুযায়ী বেসামরিক লোকজনকে রক্ষা করার জন্য সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।