প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে রাস্তায় পার করিয়ে কাতার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের সুদৃষ্টিতে এক বাংলাদেশি

120
কাতার মিউজিয়ামের পাশে ব্যস্ত হাইওয়ে রোডে প্রতিবন্ধী বৃদ্ধকে রাস্তা পার করে দিচ্ছেন তালাবাত কর্মী ইয়াসিন।
Print Friendly, PDF & Email

আবুল কালাম ফয়সাল, কাতার:
গত সপ্তাহে কাতারের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ফুড ডেলিভারীর রাইডার একজন প্রতিবন্ধি বয়স্ক ব্যক্তিকে রাস্তা পার করার জন্যে সহযোগিতা করে হৃদয় জয় করেছে এবং সেদেশে বাংলাদেশীদের সম্মান বৃদ্ধি করেছেন।

বাংলাদেশের লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার নোয়াগাঁ গ্রামের পড়ুয়া ছেলেটি ২০১৮ সালে জীবকার তাগিদে কাতার আসেন। এরপর দীর্ঘদিন নিজের সাথে সংগ্রাম করে একটি বাইক লাইসেন্স নেন এবং ফুড ডেলিভারী এজেন্ট “তালাবাতে” নতুন জার্নি শুরু করেন। অন্য সবার মতো নিজেও নিজের মতো করে কষ্ট করে উপার্জন করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন লক্ষ্মীপুরের সন্তান রাইডার মুহম্মদ ইয়াসিন।

গত সপ্তাহে কাতার মিউজিয়ামের পাশে ব্যস্ত হাইওয়ে রোডে এক প্রতিবন্ধি বৃদ্ধকে রাস্তা পার করে দিচ্ছেন তালাবাত কর্মী, এটা দেখে কেউ একজন ছবি তোলেন এবং সেটা সোশ্যাল মিডিয়াতে আপলোড দেন। আর এতেই কাতার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নজরে আসেন তিনি।

তালাবাত এর তৈরিকৃত একটি ছোট ভিডিওতে ইয়াসিন রাস্তায় এবং তারপরে কী ঘটেছিল তা বর্ণনা করেছেন। ভিডিওটি কাতার ট্রিবিউনে প্রেরণ করা হয়। ইয়াসিন বলেন, “লোকটি কোথা থেকে এসেছে তা আমি নিশ্চিত নই। আমি ম্যাকডোনাল্ডস থেকে একটি অর্ডার রিসিভ করেছিলাম। তখন পাশের রাস্তা বেশ ঝুঁকিপূর্ণ ও দ্রুত চলমান ট্রাফিক ছিল। সেসময় একজন প্রতিবন্ধী বৃদ্ধ রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা করছিলেন, কিন্তু তিনি পেছন থেকে কিছুই দেখতে পেলেন না, তখন আমি তাকে সাহায্য করতে দ্বিধা করি নাই। আমি আমার মোটরবাইকটি রাস্তার পাশে পার্ক করেছিলাম এবং তাকে জিজ্ঞাসা করলাম তিনি কোথায় যেতে চান। তিনি রাস্তার শেষের দিকে ইঙ্গিত করলেন এবং আমি তাকে রাস্তাটি অতিক্রম করতে সহায়তা করেছি। তখন ভদ্রলোক, সমস্ত কৃতজ্ঞতার সাথে আমাকে ধন্যবাদ জানালেন।

কাতার প্রবাসী লক্ষ্মীপুরের সন্তান আলোচিত রাইডার মুহম্মদ ইয়াসিন।

ইয়াসিন জানান, প্রতিবন্ধী বৃদ্ধ ব্যক্তিটিকে সহায়তার ছবিগুলি আমার অজান্তেই কেউ ক্লিক করেছিল এবং গত সপ্তাহে সোশ্যাল মিডিয়ায় সেগুলি আপলোড করেছিল, যে কারনে এটি ভাইরাল হয়েছিল।

ইয়াসিন বলেন, আমি খুব ভাল অনুভব করেছি, কারণ আমি অভাবী কাউকে সাহায্য করেছি এবং সে খুব খুশি হয়েছিল। আমার বাবা প্রায়ই আমাকে বলতেন, তুমি যদি কাউকে সাহায্য করো তবে কেউ না কেউ তোমাকে সাহায্য করবে।

ইয়াসিন জানান, এই ঘটনার পর তিনি কাতারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের ফোন পেয়েছিলেন। “আমি যা করেছি তার জন্য তারা আমাকে ধন্যবাদ জানায় এবং উপহার হিসাবে তারা আমাকে একটি হেলমেট, একটি জ্যাকেট এবং এক জোড়া জুতা দিয়েছে।

এদিকে, এ ঘটনার পর তালাবাত ইয়াসিনকে একজন রাইডার থেকে একজন রাইডার ক্যাপ্টেনের পদোন্নতিও দিয়েছেন। এখন, তিনি চালকদের একটি বহর পরিচালনা করবেন।