ফ্রান্সে একের পর এক মসজিদ বন্ধ করে দেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এরদোয়ান

15
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
একের পর এক বন্ধ করে দেয়া হচ্ছে ফ্রান্সের মসজিদ ও ইসলামিক বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। চলতি বছরের গোড়ার দিক থেকে এ পর্যন্ত কমপক্ষে ৭৩টি মসজিদ বন্ধ হয়ে গেছে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড দারমানিন। ইসলামি উগ্রবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের উদ্দেশ্যই এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী আরও বলেন, গত মাসে হেরাল্ট এলাকায় একটি মসজিদ, বেসরকারি স্কুল এবং নয়টি দোকান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এমন পরিস্থিতির মধ্যেই ফ্রান্স থেকে শতাধিক বিদেশিকে বের করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘ফরাসি ভূখণ্ডে অবৈধভাবে অবস্থান করা ২৩১ বিদেশিকে অবশ্যই বহিষ্কার করা হবে। তারা চরমপন্থি বলে অভিযোগ রয়েছে। এর মধ্যে ১৮০ জনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এতে পুরো ফ্রান্স এবং মুসলিম কমিউনিটিতে কিছুটা আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে ফ্রান্সে শিরশ্ছেদ করে এক স্কুলশিক্ষক হত্যার ঘটনায় রাজধানী প্যারিসের বাইরে একটি মসজিদ বন্ধ করা হয়েছে। গ্র্যান্ড পানতিন এলাকায় অবস্থিত মসজিদটি বুধবার (২১ অক্টোবর) থেকে ছয় মাসের জন্য বন্ধ থাকবে। সেখানে প্রায় দেড় হাজার মুসল্লি নামাজ পড়তেন বলে জানা গেছে।

সপ্তাহখানেক আগেই ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বর্ণনা করেন, বিশ্বের মধ্যে ধর্মের মধ্যে বিশ্বব্যাপী ঝুঁকিতে রয়েছে ইসলাম। স্কুলে বিদেশি অর্থায়নের বিষয়ে প্রশাসনকে আরও নজরদারি রাখার নির্দেশনাও দিয়েছেন।

ম্যাক্রোঁর এমন বক্তব্যে মিসরের বিশিষ্ট সুন্নি ইসলামি প্রতিষ্ঠান আল-আজহারের বিশিষ্ট পণ্ডিতরা ‘বর্ণবাদী’ উল্লেখ করে কড়া নিন্দা জানিয়েছেন। একই সঙ্গে ফরাসি নেতার বিরুদ্ধে ‘ঘৃণামূলক বক্তব্য’ ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ করেছেন বিশিষ্টজনরা।

আল-আজহারের ইসলামিক গবেষণা একাডেমি এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘তিনি ইসলামের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করেছেন, এই ধর্মের সঙ্গে সন্ত্রাসী কার্যকলাপের কোনও যোগসূত্র নেই’।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘ম্যাক্রোঁর বর্ণবাদী এ জাতীয় বিবৃতি বিশ্বজুড়ে ২০০ কোটি মুসলিমদের অনুভূতিতে আঘাত হানবে।

এদিকে ইসলাম, মসজিদ এবং মুসলমানদের অবস্থান নিয়ে ফরাসি প্রেসিডেন্টের নানা সময় বিতর্কিত মন্তব্যে পাল্টা জবাব দিয়েছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোয়ান।

বলেন ‘ইসলাম সংকটে’ রয়েছে, ম্যাক্রোঁর বক্তব্য জনসম্মুখে উসকানি’। অজ্ঞ বিষয়ে আরও ভালো করে জেনে মন্তব্যের পরামর্শ দেন এরদোয়ান।