পাওয়া গেল সূর্য থেকেও লক্ষগুণ উজ্জ্বল নক্ষত্রের খোঁজ

28
Print Friendly, PDF & Email

সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি ডেস্কঃ
বিশ্বব্রহ্মাণ্ড। একটা শব্দই অনেক বিশাল। এরপরেও এর বিশালতা বোঝানো সম্ভব হয় না। মহাশূন্যে কি আছে তা জানার জন্য প্রতিনিয়ত গবেষণায় মত্ত আছেন জ্যোতির্বিদেরা। আবিষ্কার হচ্ছে নতুন সব ছায়াপথ, কৃষ্ণগহ্বর। কৃষ্ণগহ্বর জন্ম দিচ্ছে নতুন গ্রহ আর নক্ষত্রের। এরই ধারাবাহিকতায় খোঁজ পাওয়া গেছে নতুন আরেকটি বিশাল নক্ষত্রের। যার আকার সূর্যের চেয়ে ১০ থেকে ১৫ গুণ এবং প্রায় এক লাখ গুণ উজ্জ্বল। এই নক্ষত্রের নাম দেওয়া হয়েছে অ্যাপেপ।

চিলিতে বসানো ইউরোপিয়ান সাউদার্ন অবজারভেটরির টেলিস্কোপের মাধ্যমে পৃথিবী থেকে প্রায় আট হাজার আলোকবর্ষ দূরের এই তারাটি শনাক্ত হয়। অ্যাপেপ বিরল ওলফ্রায়েট গোত্রের। গত শতাব্দীর ষাটের দশকে চার্লস ওলফ্ এবং জর্জ রায়েটের আবিষ্কার করা তারাগুলো অতি উজ্জ্বল ও উষ্ণ। বিরল গঠনের নতুন আবিষ্কার হওয়া তারাটিও অতি উজ্জ্বল ও উষ্ণ।

এর আগে সৌরজগতের বাইরে অস্বাভাবিক অবস্থানে থাকা পাঁচটি বিরল নক্ষত্র আবিষ্কার করেছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। এর মধ্যে দুটি জোড়ায় চারটি নক্ষত্র রয়েছে। একেকটি জোড়ার নক্ষত্রগুলো পরস্পর খুব কম দূরত্বে বা সংযুক্ত অবস্থায় রয়েছে। যুক্তরাজ্যে জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের জাতীয় সম্মেলনে ওই পাঁচটি নক্ষত্রের ব্যাপারে গবেষণার বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

বিজ্ঞানীরা বলেন, দুটি জোড়ার একটিতে নক্ষত্রগুলো ৩০ লাখ কিলোমিটার দূরত্বে রয়েছে। আর অপর জোড়াটিতে দুটি নক্ষত্র রয়েছে প্রায় সংযুক্ত অবস্থাতে। একটি জোড়ার কাছেই নিঃসঙ্গ অবস্থায় রয়েছে অপর নক্ষত্রটি।

যুক্তরাজ্যের ওপেন ইউনিভার্সিটির জ্যোতির্বিদ মার্কাস লোর বলেন, নক্ষত্রগুলোর এ ধরনের অবস্থান সত্যিই অদ্ভুত। জোড়া নক্ষত্রগুলোর কোনো গ্রহ কেন নেই, তাও স্পষ্ট নয়।

সূত্রঃবিবিসি