বাগেরহাটে দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যার পর লাশ টুকরো, পুলিশ সদস্য আটক

27
Print Friendly, PDF & Email

বাগেরহাট থেকে করসপন্ডেন্ট:
বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলায় দ্বিতীয় স্ত্রীকে হত্যার পর লাশ টুকরো করে গুম করতে গিয়ে সাদ্দাম হোসেন নামের এক পুলিশ কনস্টেবল আটক হয়েছেন। উপজেলার তাফালবাড়ী পুলিশ ফাঁড়িসংলগ্ন এলাকায় গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে তাঁকে আটক করে পুলিশ।

সাদ্দাম হোসেন সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার বাসিন্দা। তিনি শরণখোলা উপজেলার তাফালবাড়ী পুলিশ ফাঁড়িতে কর্মরত। তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী নিহত জোসনা বেগমের বাড়ি খুলনার রূপসা উপজেলায়।

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান জানান, সাদ্দাম হোসেনের প্রথম স্ত্রী সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলায় তাঁর শ্বশুরবাড়িতে থাকেন। এর মধ্যে গোপনে জোসনা বেগম নামের এক নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে বিয়ে করেন সাদ্দাম। জোসনা বেগমের এর আগে বিয়ে হয়েছিল। তাঁর একটি সন্তানও রয়েছে। ওই শিশুসহ জোসনা বেগমের সঙ্গে তাফালবাড়ী পুলিশ ফাঁড়িসংলগ্ন একটি বাসায় ভাড়া থাকতেন সাদ্দাম।

গতকাল রাতে জোসনার আগের ঘরের সন্তানকে নিয়ে সাদ্দামের কলহ হয়। এর জের ধরে জোসনাকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন সাদ্দাম। হত্যার পর জোসনার লাশ টুকরো করে কেটে বস্তায় ভরে গভীর রাতে মাটিতে পুঁতে ফেলার চেষ্টা করছিলেন তিনি। এ সময় স্থানীয় লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে পুলিশকে খবর দেন। পরে পুলিশ সাদ্দামকে আটক করে।

এদিকে, খবর পেয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাগেরহাট পুলিশ সুপার (এসপি) পংকজ চন্দ্র রায় জানান, সাদ্দামকে আটক করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের পর প্রকৃত ঘটনার বিস্তারিত জানানো সম্ভব হবে।