কুষ্টিয়ায় ছাত্রী ধর্ষণ: মাদ্রাসা সুপারের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

38
কুষ্টিয়ার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড শেষে জেলহাজতে নেওয়ার পথে ধর্ষক মাদ্রাসা সুপার আব্দুল কাদের।
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, কুষ্টিয়া:
কুষ্টিয়ার মিরপুরের সেই মাদ্রাসা সুপার মাওলানা আব্দুল কাদের তার মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের বিষয়ে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৩টায় তিনি কুষ্টিয়ার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট প্রথম আদালতের বিচারক দেলোয়ার হোসেন তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। জবানবন্দিতে ওই মাদ্রাসা সুপার ছাত্রীকে দফায় দফায় ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন।

জানা যায়, নির্যাতিতা মেয়েটি মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ ইউনিয়নের স্বরুপদহ চকপাড়া এলাকার সিরাজুল উলুম মরিয়ম নেসা মহিলা মাদ্রাসার আবাসিক ছাত্রী। গত রবিবার ফজরের নামাজের সময় মাদ্রাসার সুপার ম্ওালানা আব্দুল কাদের মেয়েটিকে নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন। পরে রাত ৮টার দিকে মেয়েটিকে নিজ কক্ষে ডেকে দ্বিতীয় দফা ধর্ষণ করেন তিনি। সুপার বিষয়টি কাউকে না জানানোর জন্য মেয়েটিকে শাসিয়েও দেন। তবে মেয়েটি সোমবার সকালে তার এক সহপাঠিকে বিষয়টি জানায়। আর ওই সহপাঠি ঘটনাটি নিজের বাবাকে জানালে মুহুর্তেই তা এলাকায় জানাজানি হয়ে যায়।

মেয়েটির বাবা এ ঘটনায় আব্দুল কাদেরের বিরুদ্ধে সোমবার মিরপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে রাতেই পুলিশ আব্দুল কাদেরকে পোড়াদহ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে। তাকে মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়ার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট প্রথম আদালতে হাজির করা হলে তিনি ঘটনার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী দেন।

পুলিশ ও আদালতের সংশ্লিষ্ট সূত্র গুলো জানায়, আব্দুল কাদের তার জবানবন্দীতে মেয়েটিকে দফায় দফায় ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন।

এদিকে, পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে মেডিকেল টেষ্টের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়েছেন।