‘টুইটার কিলার’ এর ৯ তরুনীকে হত্যার দায় স্বীকার

5
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
৯ জনকে হত্যায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন ‘টুইটার কিলার’ টাকাহিরো শিরাই। টুইটারে যোগাযোগ করে নৃশংসভাবে হত্যা করে টাকাহিরো। এটি জাপানের বহুল আলোচিত ঘটনা।

ওই হত্যার ঘটনায় এই ‘টুইটার কিলার’কে ২০১৭ সালে আটক করে দেশটির পুলিশ। যাদের হত্যা করে তাদের অঙ্গপ্রতঙ্গের বিভিন্ন অংশ তার বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) টোকিওর একটি আদালতে টাকাহিরো তার বিরুদ্ধে আনা সবগুলো অভিযোগ স্বীকার করেন।

এদিকে, তার শাস্তি কমানোর ব্যাপারে সুপারিশ করেছেন অভিযুক্তের আইনজীবীরা। তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আগামী ১৫ ডিসেম্বর এই হত্যা মামলার চূড়ান্ত রায় হওয়ার কথা রয়েছে।

রাষ্ট্রপক্ষ আদালতকে জানায়, ২০১৭ সালের মার্চ মাসে অভিযুক্ত টাকাহিরো শিরাই একটি টুইটার অ্যাকাউন্ট খোলেন। বিভিন্ন কারণে আত্মহত্যার কথা ভাবছেন এমন নারীদেরকে টার্গেট করতেন শিরাই। তার ফাঁদের শিকার হন ১৫ থেকে ২৬ বছর বয়সীরা তরুণীরা। তাদের হত্যার পর অঙ্গ-প্রতঙ্গ যামা শহরে তার নিজের বাসায় সংরক্ষণ করতেন শিরাই।

এই সিরিয়িাল কিলারের এমন কাণ্ডে তখন অবাক হয় জাপানবাসী।

এমন হত্যাকাণ্ডের পর টুইটারে বেশ কিছু পরিবর্তন আনেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। বলা হয়, টুইটারে আত্মহত্যাকে উৎসাহিত এমন কোন প্রচারণা চালানো যাবে না।

টুইটারের প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডর্সি এটিকে চরম দুঃখজনক ঘটনা উল্লেখ করেন।