যে কারনে, গাঁজা নিয়ে ব্যস্ত ভারত সরকার!

২৯ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ || ০৪:৫৪:৪৬
17
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্কঃ
অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু রহস্য উদঘাটন করতে গিয়ে হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির নেশার কাহিনী বেড়িয়ে আসছে। কোন অভিনেতা বা অভিনেত্রী কী নেশা করেন এসবের খবরে সুশান্তের মৃত্যু রহস্য কিছুটা আড়ালেই চলে যাচ্ছে।

ডয়েচে ভেলের খবরে বলা হয়, ভারত সরকার এবং বিজেপির বিরোধীরা বলছেন, বিহারে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে রাজপুত ভোট টানতেই হিন্দি ছবির জনপ্রিয় অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সিবিআই তদন্ত শুরু করে কেন্দ্র সরকার। সেই তদন্তে প্রথম থেকেই সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে প্রথমে অভিযোগ আনা হয়েছিল সুশান্তের অ্যাকাউন্ট থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার। কিন্তু অর্থনৈতিক অপরাধের তদন্তকারী সংস্থা ইডি সেই অভিযোগের সপক্ষে প্রমাণ জোগাড় করতে না পারায় তদন্তের ভার চলে যায় ভারতের মাদক নিয়ন্ত্রণ দপ্তরের হাতে। আর তাতেই একে একে ডাক পড়ে অভিনেত্রী দীপিকা পাডুকোন, সারা আলী খান, শ্রদ্ধা কাপুরের। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা সবাই নিয়মিত গাঁজা এবং অন্যান্য মাদক সেবন করে থাকেন। কিন্তু চলচ্চিত্র নির্মাণের সঙ্গে যুক্ত শিল্পী, কলাকুশলীরা যে গাঁজা, চরস, ইত্যাদি খান, সেটা কি এই প্রথম জানা গেল?‌

চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং চিত্র সমালোচক অনিরুদ্ধ ধর যুক্ত ছিলেন অপর্ণা সেনের ‘‌মিস্টার অ্যান্ড মিসেস আয়ার’ ছবির সহ-পরিচালক হিসেবে।

তিনি বলেন, মুম্বাইয়ের দুই বর্ষীয়ান শিল্পী ভীষ্ম সাহানি এবং সুরেখা সিক্‌রি ওই ছবিতে অভিনয় করতে এসেছিলেন। উত্তরবঙ্গের আউটডোরে প্রতিদিনের শুটিংয়ের পর তাদের দুজনকে গাঁজা খেতে খেতে গল্প করতে দেখা যেত। ভোরবেলা যত অসময়েই শুটিংয়ে হাজির হওয়ার থাকতো, তারা নির্ভুলভাবে সময়মতই হাজির হতেন।

নেশা করার জন্য তাদের পেশাদারিত্বের কোনো ঘাটতি চোখে পড়েনি। এছাড়া বিখ্যাত অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহর কথাও জানিয়েছেন অনিরুদ্ধ ধর, যিনি মজা করে বলতেন, গাঁজা না খেলে ভালো অভিনয় করা যায় না।

কিন্তু চলচ্চিত্রের জগতে গাঁজা-চরসের পেছনে পড়ে যাওয়ার অন্য কারণও আছে মনে করেন অনিরুদ্ধ। তিনি মনে করেন, ‌নেশা করে তারা যে মারাত্মক একটা কিছু করেন, দেশ বিরোধী কিছু করেন, তা তো নয়!‌ কিন্তু তা হলে তাদের এরকম শাস্তি দেওয়া হচ্ছে কেন? ‌আমার মনে হয়, এটার পেছনে একটা উদ্দেশ্য আছে।

যেমন কিছুদিন আগে দীপিকা পাডুকোন জেএনইউ-তে গিয়েছিলেন। তাকে একটা শিক্ষা দেওয়ার ব্যাপার ছিল। যারাই সরকার বিরোধী কথা বলছে, তাদেরকে একটা ইঙ্গিত দেওয়া হয় যে, এইসব করলে তোমাকে খুনখারাপির চার্জে তো ফেলা যাবে না, কিন্তু নার্কোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর মাধ্যমে শিক্ষা দিয়ে দেবো!

সুশান্ত সিংয়ের রহস্যমৃত্যুর ঘটনায় এখন পর্যন্ত প্রধানত মহিলাদেরই বেশি জেরার সামনে পড়তে হচ্ছে। মাদক নেওয়ার প্রশ্নেও অভিযুক্ত মূলত মহিলারাই। অভিনেত্রী গুলশনারা খাতুন বলেন, ‌বিজেপি, আরএসএস যে ভারতমাতার রূপটি তুলে ধরে, তা পুরুষতন্ত্র যেভাবে মেয়েদের দেখতে চায়, সেটাই হচ্ছে।