ঘাড়ে ব্যথা, নিরাময়ে যা করণীয়

17
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক রিপোর্ট:
প্রতিদিনের খুব পরিচিত একটি সমস্যার মধ্যে ঘাড়ে ব্যথা অন্যতম। সারাদিন কাজের মধ্যে থেকে দিন শেষে শরীরে নেমে আসে ক্লান্তি। আর তখনই ঘাড়ে ব্যথা হওয়ার সমস্যা দেখা দেয়। যেকোনো বয়সীর ক্ষেত্রেই এই সমস্যা দেখা দিতে পারে।


আজকাল কম-বেশি সবাই মোবাইল, কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকেন। আর এসব ডিভাইস ব্যবহারের সময় দীর্ঘক্ষণ ঝুঁকে বসে থাকার কারণে ঘাড় ব্যথা দেখা দিতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে মাংসপেশীতে টান ধরা, শিরদাঁড়ায় হাড়ের অসুখ, আর্থ্রাইটিস, সারভাইকাল স্পন্ডিলসিস, ইত্যাদি অসুখ থেকেও ঘাড়ের ব্যথা হতে পারে।

অন্যান্য ব্যথার মতো ঘাড় ব্যথাও বেশ যন্ত্রণাদায়ক। ঘাড় ব্যথা শুরু হলে অন্য কোনো কাজে মন দেয়া কঠিন হয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ঘাড় ব্যথা চিকিৎসার মূল কৌশল হল ব্যায়াম, ধ্যান এবং সঠিক শারীরিক অঙ্গবিন্যাস। এসবে কাজ না হলে তখন চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া জরুরি। এছাড়াও ঘাড় ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে ঘরোয়া কিছু উপায় রয়েছে। চলুন জেনে নেয়া যাক সেগুলো-

ম্যাসাজ:- যেকোনো ব্যথা কমাতে ম্যাসাজ কার্যকরী। ঘাড় ব্যথা হলেও এটি মেনে চলতে পারেন। ব্যথা দূর করতে নারকেল তেল অথবা অলিভ অয়েল হালকা গরম করে ঘাড় ও কাঁধে মেখে নিন। এরপর এটি ম্যাসাজ করুন। এভাবে ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন। ব্যথা থেকে মুক্তি মিলবে সহজেই।

আইস:- ব্যথা দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন আইস প্যাক। কারণ শীতল তাপমাত্রা প্রদাহ হ্রাস করতে এবং ব্যথা উপশম করতে সাহায্য করে। বরফের টুকরো গ্লাসে বা প্যাকেটে ভরে ব্যথা জায়গায় ধরতে পারেন। এভাবে সারাদিনে দুই থেকে তিন বার করে ১৫ মিনিটের জন্য দিতে থাকুন। ব্যথা কমবে।

লবণ-পানিতে গোসল:- মাংসপেশি টান ধরা থেকে যদি ঘাড়ের ব্যথা হয়ে থাকে, তবে গরম পানিতে ইপসম সল্ট মিশিয়ে গোসল করতে পারেন। এই ইপসম সল্টে থাকা সালফেট ম্যাগনেসিয়াম মাংসপেশীকে শিথিল করে ফোলা এবং ব্যথা কমাতে সহায়তা করে। এটি মানসিক চাপ কমানোর পাশাপাশি রক্ত সঞ্চালন সচল রাখে।

আপেল সিডার ভিনেগার:- আপেল সিডার ভিনেগারে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা শরীরের যেকোনো ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে পারে। গরম পানিতে ভিনেগার মিশিয়ে ব্যথাযুক্ত জায়গায় মালিশ করুন অথবা এই ভিনেগারে একটি তোয়ালে ভিজিয়ে ব্যথার জায়গায় রাখুন। উপকার মিলবে।

ব্যায়াম:- ঘাড়ের এমন কিছু ব্যায়াম যা ব্যথা হ্রাস করতে সাহায্য করতে পারে। ব্যায়াম করার আগে মাংসপেশীকে প্রসারিত করার জন্য গরম সেঁক দিয়ে দিন। এরপর আপনার ঘাড় বৃত্তাকার গতিতে একবার ক্লক ওয়াইজ এবং আবার অ্যান্টি ক্লক ওয়াইজ ঘোরান। এবার ঘাড় আস্তে আস্তে পেছনে এবং সামনে, আবার একবার ডান পাশ ও একবার বাম পাশে ঘোরান। এভাবে ১৫ মিনিট করে দিনে ৩ থেকে ৪ বার করুন। ব্যথা দূর হবে।

সূত্র: বোল্ডস্কাই