যুগান্তকারী আবিষ্কার! মৌমাছির বিষ ধ্বংস করবে স্তন ক্যানসারের কোষ

৩ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ || ১১:০৪:৫২
19
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক রিপোর্ট:
বিশ্বজুড়েই নারীদের মধ্যে স্তন ক্যান্সারের প্রকোপ বাড়ছে। কিন্তু এই ক্যান্সার কোষ মোকাবেলায় সক্ষম হাজার হাজার রাসায়নিক উপাদান থাকলেও মানুষের চিকিৎসায় কাজে লাগানোর মতো উপাদান খুব কমই। তবে এবার অস্ট্রেলিয়ার একদল গবেষক দাবি করেছেন, মৌমাছির বিষ স্তন ক্যান্সারের আগ্রাসী কোষ ধ্বংস করতে সক্ষম।

তারা জানান, এই বিষে থাকা মেলিটিন দুরারোগ্য ‘ট্রিপল-নেগেটিভ’ (টিএনবিসি) এবং ‘এইচইআর২-এনরিচড’ স্তন ক্যান্সারের কোষ ধ্বংসে কাজ করে। মেলিটিন ২৬টি অ্যামিনো এসিড দিয়ে গঠিত একটি ‘বেসিক পেপটাইড’; যা ওই দুই ধরনের স্তন ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে কাজ করে।

ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টার্ন অস্ট্রেলিয়ার প্রধান বিজ্ঞানী অধ্যাপক পেটার লিংকেন বলেছেন, মেলিটিন ও এর কার্যকারিতা নিয়ে এ আবিস্কার ‘অবিশ্বাস্য’।

গবেষকরা এ আবিষ্কারকে ‘উৎসাহব্যাঞ্জক’ বলে বর্ণনা করেছেন। যদিও এ বিষয়ে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন তারা। এর আগে বেশ কিছু গবেষণায় মৌমাছির বিষে অন্য ধরনের ক্যান্সার প্রতিরোধী উপাদান পাওয়া গেছে। যেমন : ত্বক ক্যান্সার বা মেলানোমা প্রতিরোধী উপাদান।

পশ্চিম ‍অস্ট্রেলিয়ার ‘দ্য হ্যারি পারকিন্স ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল রিসার্চ’ এর গবেষকরা ‘নেচার প্রিসিশন অঙ্কোলজি’ জার্নালে তাদের গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছেন।

গবেষকরা তিনশ’টির বেশি মৌমাছি ও ভ্রমরের বিষ পরীক্ষা করে মৌমাছির বিষে ক্যান্সার কোষ ধ্বংসকারী ‘অত্যন্ত শক্তিশালী’ উপদান খুঁজে পেয়েছেন।

দেখা গেছে, এক ফোঁটা বিষই মাত্র এক ঘণ্টায় ক্যান্সার কোষ ধ্বংস করতে সক্ষম, তাও আবার সুস্থ কোষের সবচেয়ে কম ক্ষতি করে। তবে পরবর্তী ডোজের ক্ষেত্রে বিষাক্ততার মাত্রা বেড়ে যায়।

গবেষকরা এও দেখেছেন যে, মেলিটিন উপাদানটিই সক্রিয়ভাবে ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি ‘থামিয়ে দিতে’ পারে বা ‘বাধা দিতে’ পারে। তাছাড়া, মৌমাছির বিষে মেলিটিন প্রাকৃতিকভাবে থাকলেও এটি কৃত্রিমভাবেও বানানো যায়।

যে ধরনের স্তন ক্যান্সার অত্যন্ত আগ্রাসী সেগুলোর অন্যতম হচ্ছে, ট্রিপল-নেগেটিভ ব্রেস্ট ক্যান্সার। ১০ থেকে ১৫ শতাংশ স্তন ক্যানসারই এ ধরনের হয়ে থাকে। এ ক্যান্সারের চিকিৎসায় সাধারণত অস্ত্রোপচার এবং পরে রেডিওথেরাপি ও কেমোথেরাপি দেওয়া হয়।