বশেমুরবিপ্রবির কম্পিউটার চুরি: অফিসার্স এসোসিয়েশনের বিবৃতি

২ই সেপ্টেম্বর, ২০২০ || ১১:১৫:৫২
29
Print Friendly, PDF & Email

জয়নাল আবেদীন জিহান, বশেমুরবিপ্রবি:
গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার থেকে কম্পিউটার চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে উদ্ভূত অবস্থার প্রেক্ষিতে বশেমুরবিপ্রবি অফিসার্স এসোসিয়েশন বিবৃতি প্রদান করেছে।

মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মো: নজরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিদ মিয়া স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশে ফেব্রুয়ারি লাইব্রেরী ভবন থেকে ৪৯টি কম্পিউটার চুরি এবং উক্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিছু ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে।

অফিসার্স এসোসিয়েশন তাদের বিবৃতিতে জানান, গত রবিবার শিক্ষক সমিতির বিবৃতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সমিতির দৃষ্টিগোচর হয়েছে। শিক্ষক সমিতির বিবৃতি উপযোগী ও বাস্তবধর্মী থাকলেও বিবৃতির কিছু অংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তাদের মধ্যে বিভেদ তৈরি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিবেশ নষ্ট করবে বলে কর্মকর্তা সমিতি মনে করে। জাতির শ্রেষ্ট সন্তান শিক্ষকমন্ডলী থেকে এ ধরনের বিবৃতিতে হতবাক, হতাশ ও বিস্মিত প্রকাশ করেছেন কর্মকর্তা সমিতি।

শিক্ষার অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করতে, শিক্ষকদের জ্ঞান চর্চার পরিবেশ যাতে বাধামুক্ত থাকে সে লক্ষ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিয়োগ করে থাকেন বলে জানানো হয়। শিক্ষক সমিতি-“তদন্ত কমিটি থেকে একজনকে অব্যাহতি, পদত্যাগ, রদবদল একজন অব্যাহতি প্রাপ্ত সদস্যের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া বক্তব্য রেজিস্ট্রার অফিসে দাখিল হওয়া নথিপত্র এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভাইরাল হওয়া প্রতিক্রিয়া, প্রতিবাদলিপি শিক্ষক সমিতির নজরে এসেছে এবং অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার শুরু হতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের শিক্ষক সমিতি অতিনিবিড়ভাবে যোগাযোগ রক্ষা করে আসছে” বলে বিবৃতি প্রদান করলেও উক্ত বিবৃতিতে ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে কি কথোপকথন হয়েছে সেই বিষয়ে কোন কিছু উল্লেখ করেনি বলে জানিয়েছে অফিসার্স এসোসিয়েশন।

একই সঙ্গে একজন কর্মকর্তার ব্যক্তিগত চিঠি কীভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেইসবুকে) ভাইরাল হয়, সে বিষয়টি শিক্ষক সমিতির বিবৃতিতে আশা উচিত ছিল বলে অফিসার্স এসোসিয়েশন মনে করেন। একই সাথে শিক্ষক সমিতি ব্যক্তিগত আক্রমন করে দেওয়া যে কোন বক্তব্য, বিভ্রান্তিকর তথ্য এবং কর্মসূচি থেকে বিরত থাকার জন্য শিক্ষার্থীদের অনুরোধ, নিরপেক্ষ তদন্ত কাজকে কোনভাবে প্রভাবিত না করা এবং অপরাধীদের সুষ্ঠু বিচারের যে দাবি জানান শিক্ষক সমিতি তাদের দেওয়া বিবৃতিতে, তার জন্য সাধুবাদ জানান অফিসার্স এসোসিয়েশন। সম্প্রতি, রেজিস্ট্রার, প্রফেসর ড. নূরউদ্দিন আহমেদ এর সাথে প্রক্টর রাজিউর রহমান যে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেছেন। এই বিষয়টিও শিক্ষক সমিতির বিবৃতিতে আশা উচিত ছিল বলে মনে করেন অফিসার্স এসোসিয়েশন।

বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রতি সংঘটিত কম্পিউটার চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে উদ্ভুত বর্তমান পরিস্থিতিতে সহকারী রেজিস্ট্রার মো: নজরুল ইসলাম (হিরা) চোর ধরা ও কম্পিউটার উদ্ধার কাজে পুলিশকে সময়োপযোগী সহায়তা করায়, চুরি যাওয়া ৪৯টি কম্পিউটারের মধ্যে ৩৪টি উদ্ধার হয়েছে। যা একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ বলে মনে করেন বশেমুরবিপ্রবি অফিসার্স এসোসিয়েশন।