সুখী-সমৃদ্ধশালী দেশ গড়তে জাতির পিতার আদর্শ অনুসরন করতে হবে: প্রধান বিচারপতি

১৬ই Auguই, ২০২০ || ০৩:০২:০১
76
বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন।
Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সুপ্রীম কোর্ট মাজার মসজিদ কমিটির উদ্যোগে আলোচনা সভা, কোরআন খতম, মিলাদ ও বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শনিবার (১৫ আগস্ট) ফজর থেকে কোরআন খতমসহ নানা কর্মসূচি পালন করা হয় সেখানে।

বিকেলে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মো: আবু জাফর সিদ্দিকী।

প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের মধ্যদিয়ে জাতি দায় মুক্তি পেয়েছে। সুখী ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়তে হলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে আমাদের অনুসরণ করতে হবে। চিন্তা-চেতনায় তিনি ছিলেন অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রনায়ক। সারাবিশ্বের নিপিড়ীত ও নির্যাতিত মানুষের কন্ঠস্বর ছিলেন তিনি।

প্রধান বিচারপতি বলেন, বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের নয় সমগ্র বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের মুক্তি সংগ্রামের অগ্রদূত হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি আমাদের মহান ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু‘র আদর্শকে জানতে ও বুঝতে হলে তাঁর অসমাপ্ত আত্মজীবনী ও কারাগারের রোজনামচাসহ প্রকাশিত অন্যান্য বই-পুস্তক নতুন প্রজন্মের পাঠ করা প্রয়োজন। নতুন প্রজন্মই গড়ে তুলবে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্রমুক্ত উন্নত ও সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ।

সভাপতির বক্তব্যে বিচারপতি মো: আবু জাফর সিদ্দিকী বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বশরীরে আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাঁর আদর্শ, বাঙ্গালি জাতির হৃদয়ে চিরজাগ্রত আছে। তিনি বেঁচে থাকবেন হাজার বছর, বিশ্বের মুক্তিকামি মানুষের মনিকোঠায়। কালের বিবর্তনে তিনি ক্রমান্বয়ে অধিক সম্মানের আসনে উদভাসিত হবেন। আইনের শাসন ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে বঙ্গবন্ধু ছিলেন আপোষহীন।

আলোচনা সভায় অংশ নেন- হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মো: হাবিবুল গনি, বিচারপতি মো: খসরুজ্জামান, বিচারপতি মো: কে.এম. কামরুল কাদের, এ্যাডভোকেট জগলুল হায়দার আফরিক এবং পরিচালনা কমিটির সদস্য লে: কর্ণেল (অবঃ) নাসির উদ্দিন আহমেদ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এ এফ এম আব্দুর রহমান, সুপ্রীম কোর্টের রেজিষ্ট্রার জেনারেল মো: আলী আকবর, আপিল বিভাগের রেজিষ্ট্রার মো: বদরুল আলম, হাইকোর্ট বিভাগের রেজিষ্ট্রার মো: গোলাম রব্বানী, স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সুপ্রীম কোর্টের ডেপুটি রেজিষ্ট্রার আব্দুর রহমান।

খতমে কোরআন ও আলোচনা সভার পর বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। মোনাজাতে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যসহ ১৫ আগস্টের শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মহান আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করা হয়। দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি এবং উন্নতির জন্য দোয়া করা হয়।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন হাফেজ মো. আবদুল কাদির। দোয়া-মাহফিল পরিচালনা করেন পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা আহমাদ রেজা ফারুকী। মোনাজাত করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও খতীব মাওলানা আহমাদ হাসান চৌধুরী ফুলতলী।