কমলাকে নিজের সঙ্গী হিসেবে বেছে নিলেন জো বাইডেন!

১২ই Auguই, ২০২০ || ১০:৪৫:১১
9
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্কঃ
আসন্ন নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে নিজের রানিংমেট অর্থাৎ ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে ক্যালিফোর্নিয়ার সিনেটর কমলা হ্যারিসকেই বেছে নিলেন ডেমোক্র্যাটদলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন। অনেক জল্পনা আর পর্যালোচনা শেষে মঙ্গলবার রানিংমেট হিসেবে কমলা হ্যারিসের নাম ঘোষণা করলেন তিনি।

নির্বাচনে রিপাবলিকানদলীয় বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বাইডেন-কমলা জুটির। ভারতীয় বংশোদ্ভূত কমলা হ্যারিস অবশ্য প্রেসিডেন্ট পদের জন্য প্রচারণা শুরু করেছিলেন। ডেমোক্র্যাটদের প্রাইমারি সিলেকশনে বাইডেনের সমালোচনা করতেও দেখা যায় তাকে।

ওবামা প্রশাসনে দুই দফায় ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব সামলানো ৭৭ বছর বয়সী বাইডেন প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে মনোনীত হওয়ার সময় জানিয়েছিলেন তার রানিংমেট হবেন একজন নারী। অনেক কাটাছেড়ার পর শেষ পর্যন্ত সংক্ষিপ্ত তালিকায় যে পাঁচ নারীর নাম ছিল, কমলা হ্যারিস ছিলেন শীর্ষে।

দীর্ঘদিন ধরে গোপনে নানা পর্যালোচনা শেষে মঙ্গলবার নিজের রানিংমেটের নাম ঘোষণা করে এক টুইট বার্তায় বাইডেন লিখেছেন, ‘আমি অত্যন্ত সম্মানের সঙ্গে রানিংমেট হিসেবে কমলা হ্যারিসের—একজন নির্ভীক সৈনিক ও দেশের অন্যতম সেরা সরকারি এক কর্মচারী— নাম ঘোষণা করছি।’

কৃষ্ণাঙ্গ ও ভারতীয় মিশ্র বর্ণের কমলা হ্যারিস (৫৫) মার্কিন সিনেটে প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত এবং দ্বিতীয় কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তার বাবা কৃষ্ণাঙ্গ আমেরিকান ও মা ভারতীয়। প্রথমবারের মতো একজন কৃষ্ণাঙ্গ ও একইসঙ্গে ভারতীয় হিসেবে এই পদে তিনি মনোনীত হলেন।

যুক্তরাষ্ট্রে চতুর্থ কোনো নারী হিসেবে প্রেসিডেন্ট পদের লড়াইয়ের জন্য মনোনীত হলেন কমলা। রানিংমেট নির্বাচিত হওয়ায় বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বচিত হলে আগামী চার কিংবা আট বছরের জন্য ডেমোক্র্যাটদের ডি-ফ্যাক্টো নেতা হতে যাচ্ছেন কমলা হ্যারিস— নিউইয়র্ক টাইমস এমনটাই লিখেছে।

ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে মনোনীত হওয়ার পর কমলা হ্যারিস এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘জো বাইডেন আমেরিকার জনগণকে একীভূত করতে পারবেন কারণ তিনি আমাদের জন্য লড়াই করেই জীবন কাটিয়েছেন। এবং প্রেসিডেন্ট হিসেবে তিনি এমন একটি আমেরিকা তৈরি করবেন; যা আমাদের আদর্শ অনুসারে চলবে’।

বাইডেনের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি আরও লিখেছেন, ‘ভাইস প্রেসিডেন্ট পদের আমাদের দলের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে তার সঙ্গে যোগ দিতে পেরে আমি সম্মানিত, এবং তাকে আমাদের সর্বাধিনায়ক হওয়ার জন্য যা করতে হবে তা করার জন্য আমি সম্মানিত’।

বাইডেন কমলা হ্যারিসের নাম ঘোষণা করার পরপরই তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা, বিল ক্লিনটন থেকে শুরু করে গত নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটদলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন এবং কংগ্রেসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। কমলার প্রতিদ্বন্দ্বীরাও তাকে অভিনন্দিত করেছেন।

রাজনীতিতে আসার আগে থেকেই আইনজীবী হিসেবে সুনাম অর্জন করেন কমলা হ্যারিস। তাকে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির উদারনৈতিক পক্ষের সঙ্গে বনেদি ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে একটা যোগসূত্র হিসেবে দেখা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রে সাম্প্রতিক নাগরিক আন্দোলনের সময়েও তাকে অগ্রভাগে দেখা গেছে।

নিউইয়র্ক টাইমস লিখেছে, রানিংমেট নির্বাচনের ক্ষেত্রে জীবনের বেশিরভাগ সময় কৌসুলি হিসেবে কাটানো উদারনৈতিক ডেমোক্র্যাট হিসেবে পরিচিত কমলাই ছিলেন বাইডেনের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ পছন্দ। ডেমোক্র্যাটিক এস্টাবলিশমেন্টের একজন বিশ্বাসযোগ মিত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয় তাকে।

রানিংমেট হিসেবে কমলা হ্যারিসকে বেছে নেওয়ার খবর সমর্থকদের জানিয়ে মুঠোফোন ও ই-মেইল বার্তায় জো বাইডেন লিখেছেন, ‘জো বাইডেন বলছি, বড় সংবাদ; আমি কমলা হ্যারিসকে আমার রানিংমেট হিসেবে বেছে নিয়েছি। আপনাদেরকে নিয়ে একসঙ্গে আমরা ট্রাম্পকে হারাতে যাচ্ছি’।