শুদ্ধি অভিযানের মাধ্যমে ফরিদপুরে স্বাভাবিকতা ফিরে আসবে: শামীম হক

১০ই Auguই, ২০২০ || ০৯:০৫:০৪
24
Print Friendly, PDF & Email

বিজয় পোদ্দার, ফরিদপুর:
জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সর্ব ইউরোপিয়ান আ.লীগের বিশিষ্ট নেতা, ফরিদপুর ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন ও হল্যান্ড চিলড্রেন্স হাউস (এতিমখানা)- এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শামীম হক এক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, বিগত দিনে আমরা ফরিদপুরে স্বাধীনতার পক্ষের চেতনায় দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করে কাজ করেছি। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক নির্দেশনায় নৌকাকে বিজয়ী করতে কাজ করেছি।

সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশারফ হোসেনের পক্ষে সর্বশক্তি প্রয়োগ করে তাকে বিজয়ী করে আনি। কিন্তু তিনি মন্ত্রী হবার পর ক্ষমতার কেন্দ্রে চলে আসে তার ভাই খন্দঃ মোহতেশাম হোসেন বাবর ও খন্দকার মারুফ হোসেন। সেই সাথে তাদের সহযোগী হিসেবে মোকাররম মিয়া বাবু, রুবেল, বরকত, লেভী, ফুয়াদসহ গুটি কয়েক ব্যক্তি লুটপাট, সন্ত্রাসী কার্যকলাপ, চাঁদাবাজী, টেন্ডারবাজী করে হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছে। ত্যাগী নেতাকর্মীরা ভাগ্যহত হয়ে উপেক্ষিত হয়েছে বার বার। যারা প্রতিবাদ করেছে তাদের উপর হামলা চালানো হয়েছে।

দলীয় সভা, সমাবেশে ত্যাগী নেতাদের স্থান হয়েছে নীচে। আর স্বাধীনতা বিরোধীদের মঞ্চে বসিয়ে বড় বড় পদ পদবীতে অধিষ্ঠিত করে কলঙ্কিত করা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে। সেই অধ্যায়ের পতন শুরু হয়েছে। বাংলাদেশের সফল রাষ্ট্র নায়ক আন্তর্জাতিক নেত্রী দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন তাকে অভিবাদন। তিনি যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে দেশ ও জাতির স্বার্থেই দলের সুসংগঠিত রাজনৈতিক প্রজ্ঞায় আমরা তার সাথে থাকবো।

ফরিদপুরে আর হাইবিব্রড, স্বাধীনতাবিরোধীদের স্থান হবে না। দলকে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের মাধ্যমে সাবেক গৌরব ফিরিয়ে আনতে কাজ চলছে। ফরিদপুরে দলের মধ্যে অনুপ্রবেশকারী অসংখ্য ছদ্মবেশী বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কারা তাদের প্রশ্রয়, আশ্রয় দিয়েছে তা সবার জানা। অভিযান চলছে কেউ রেহাই পাবে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে জননী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞাকে ধারন করে আমরা অগ্রসর হবো। আমাদের লক্ষ্য আর দৃঢ় প্রত্যয়ে।

তিনি ত্যাগী দলীয় নেতাকর্মীদের অনুরোধ করে বলেন মান-অভিমান থাকতে পারে তবে দলের স্বার্থে আজকের এই মুহুর্তে দলকে সুসংগঠিত করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। দলীয় সভানেত্রীর যে দিক নির্দেশনা আসবে তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে হবে।