মরিচ ক্ষেতে গাঁজার চাষ!

১০ই Auguই, ২০২০ || ০৮:১০:১৪
19
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, নওগাঁ:
ইসলাম মণ্ডল (২৯) পেশায় একজন কৃষক। শখের বসে তাঁর বসতবাড়ির পাশের সাত শতাংশ জমিতে মরিচ চাষ করেছেন তিনি। গ্রামবাসীর ভাষ্য মতে ভাল দামও পেয়েছেন মরিচের। হয়তো দাম বেশি পাওয়ায় মরিচ ক্ষেতে দিনের অধিকাংশ সময় কাটাতেন ইসলাম মণ্ডল। কিন্তু গ্রামের লোকজন অবশেষে জানতে পারেন মরিচ চাষের আড়ালে গাঁজারও চাষ করছেন তিনি।

ইসলাম নওগাঁর মহাদবেপুর উপজেলার সফাপুর ইউনিয়নের লক্ষ্মীপুর গ্রামের বাসিন্দা। পুলিশ গোপন সংবাদে তাঁর মরিচক্ষেত থেকে ১৬টি গাঁজাগাছ জব্দ করেছে। যার ওজন প্রায় ৭ কেজি ৮৫০ গ্রাম। জব্দকৃত গাঁজার আনুমানিক বাজার দর প্রায় এক লাখ বিশ হাজার টাকা। গাঁজা চাষের অপরাধে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

স্থানীয়রা জানায়, মরিচ চাষী ইসলাম ওই ক্ষেতে দিনের বেশিরভাগ সময় কাটাতো। আমরা ভাবতাম, হয়তো ভালো ফলনের আশায় সে মরিচ গাছের রাত-দিন যত্ন নেন। কিন্তু মরিচ চাষের আড়ালে তিনি যে গাঁজা চাষ করছেন, সেটি আমরা অনেক পরে জানতে পারি। মরিচ গাছের ভিতরে অনেক উঁচু উঁচু গাছ দেখে আমাদের সন্দেহ হয়। খোঁজ-খবর নিয়ে জানা যায় ওই গুলি গাঁজা গাছ।

পুলিশ জানায়, গতকাল সন্ধ্যায় গ্রামের এক ব্যক্তি ফোন করে জানান, তাঁদের গ্রামে মরিচ চাষের আড়ালে এক ব্যক্তি গাঁজার চাষ করছেন। এমন খবরে ইসলাম মণ্ডলের মরিচ ক্ষেতে অভিযান চালানো হয়। পরে সেখানে গিয়ে দেখা যায়, একটি মরিচ গাছের মাঝখানে কয়েকটি গাছ উঁচু হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। পরে নিশ্চিত হওয়া যায় সেগুলি গাঁজাগাছ। ওই মরিচ ক্ষেত থেকে পরে ১৬টি গাঁজার গাছ উদ্ধার করা হয়। এ সময় ক্ষেতের মালিক ইসলাম মণ্ডলকে আটক করে পুলিশ।

মহাদেবপুর থানার ওসি নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয়দের খবরে ইসলামের মরিচক্ষেতে অভিযান চালিয়ে ১৬টি গাঁজার গাছ জব্দ করা হয়। পুলিশ সোমবারে তাঁর বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করে।