লেবাননে এবার ৯ এমপির পদত্যাগ

9
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
লেবাননে দুই মন্ত্রীর পর এবার আরও ৯ এমপি পদত্যাগ করেছেন। আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পার্লামেন্টের নয় সদস্য এবং দুই মন্ত্রী তাদের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। গত মঙ্গলবারের ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর সরকারের ওপর বড় ধরনের চাপ তৈরি হয়েছে। এর মধ্যেই একের পর এক মন্ত্রী, এমপি পদত্যাগ করছেন।

রোববার তথ্যমন্ত্রী মানাল আবদেল সামাদ এবং পরিবেশমন্ত্রী দামিয়ানোস কাত্তার পদত্যাগ করেন। এরপরেই বাকি নয়জন এমপি পদত্যাগ করলেন। তবে ওই নয় এমপি কারা সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হয়নি।

এদিকে, লেবাননের স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্যমতে, লেবানিজ প্রধানমন্ত্রী তার ঘনিষ্ঠ সহযোগী দামিয়ানোস কাত্তারকে পরিবেশমন্ত্রী পদে ধরে রাখার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পদত্যাগের সিদ্ধান্ত বদলাননি কাত্তার।

তার আগে সরকারের ব্যর্থতার দায় কাঁধে নিয়ে পদত্যাগের ঘোষণা দেন তথ্যমন্ত্রী মানাল আবদেল সামাদ। টেলিভিশনে দেয়া এক সংক্ষিপ্ত ভাষণে তিনি বলেন, বৈরুতে বিশাল বিপর্যয়ের পর আমি সরকার থেকে পদত্যাগ করেছি। আমি লেবানিজদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আমরা তাদের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারিনি।

গত মঙ্গলবার বৈরুতের পূর্বাঞ্চলীয় বন্দরে ভয়াবহ বিস্ফোরণে প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ১৫৮ জন, আহত ছয় হাজারেরও বেশি মানুষ। বিস্ফোরণে শহরটির অর্ধেকই ধূলিসাৎ হয়ে গেছে। এতে গৃহহীন হয়ে পড়েছেন তিন লাখের বেশি বাসিন্দা।

লেবাননের সরকারি কর্মকর্তাদের বিশ্বাস, বৈরুত বন্দরের একটি গুদামে প্রায় সাত বছর ধরে মজুত করে রাখা ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট থেকে এ বিস্ফোরণ ঘটেছে।

বিস্ফোরণের জন্য সরকারের অবহেলা এবং দুর্নীতিকে দায়ী করে গত কয়েকদিন ধরেই লেবাননের রাস্তায় বিক্ষোভ করছেন হাজার হাজার মানুষ। গত শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বেশ কয়েকটি সরকারি অফিসে হামলা চালায় সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা।

এদিকে, রেড ক্রস বলছে, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত অন্তত ৬৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থলে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে আরও ১৮৫ জনকে। ফরাসী বার্তাসংস্থা এএফপি বলছে, শনিবারের ওই সংঘর্ষে পুলিশের অন্তত এক কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন।

ভয়াবহ ওই বিস্ফোরণের পর লেবাননের পাশে দাঁড়িয়েছে বিভিন্ন দেশ। ইরান, ইরাক, ফ্রান্স, ইতালি, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিভিন্ন দেশ থেকে লেবাননে মানবিক ও মেডিকেল সহায়তা পাঠানো হচ্ছে। এছাড়া দেশটিতে ইতোমধ্যেই একটি ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল তৈরি করেছে ইরান।