কাঁচা কলার উপকারিতাসমূহ

১০ই Auguই, ২০২০ || ১২:৫৮:৩৭
13
Print Friendly, PDF & Email

হেলথ ডেস্কঃ

কলা যে কারও পছন্দের ফল হবারই কথা। তবে সেটা পাকা কলার ক্ষেত্রে, কিন্তু কাঁচা হলে? আমরা তো বরং কাচকলা শব্দটা ব্যবহারই করি তাচ্ছিল্য অর্থে। আসলেই কি অতটা তুচ্ছ করবার মতো জিনিস কাঁচা কলা? আজ সে প্রশ্নের সমাধান হবে আশা করি। পাকা কলা ফল হিসেবে ব্যবহার হলেও কাঁচা কলা ব্যবহার হয় সবজি হিসেবে। শুরুতেই একটা পজেটিভিটি অলরেডি আমরা পেলাম বৈকি। চলুন, এবারে বিস্তারিত বলা যাক…

উচ্চ ভিটামিন বি৬ এর উৎস এই কাঁচা কলা। আছে প্রচুর পরিমাণ লৌহ। এর বাইরে নানাবিধ গুণের সমন্বয়ক এই কাঁচা কলা। যেমনঃ

ওজন কমায়ঃ ওজন কমাতে চাইলে, খাদ্য তালিকায় রাখুন কাঁচ কলা। কাঁচ কলার ফাইবার অনেকটা সময় পেট ভরিয়ে রাখে। এটি আঁশযুক্ত হওয়ায় তা মেদ কমাতেও সাহায্য করে।

রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণঃ রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণের জন্যেও কাঁচ কলা উপকারী। এটি আঁশযুক্ত হওয়ায় রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। ভিটামিন বি৬ গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করে টাইপ-টু ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাসঃ পাকা কলার মত কাঁচ কলাতেও প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছে। বিভিন্ন গবেষণায় দাবি করা হয়েছে, প্রতিদিন ৪,৭০০ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম গ্রহণে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস হয়। তবে পটাসিয়াম সবার জন্য নিরাপদ নয়। উচ্চ রক্তচাপ অথবা কিডনির রোগে আক্রান্ত রোগীদের পক্ষে তাই কাঁচ কলা খাওয়ায় নিয়ন্ত্রণ থাকা উচিত।

পেটের খারাপ ব্যাকটেরিয়ার যমঃ কাঁচ কলা আঁশযুক্ত সবজি হওয়ায় এটি খুব সহজে হজম হয়। কাঁচ কলা পেটের ভিতরের খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে দেয়। তবে অতিরিক্ত পেট ফোলার সমস্যা থাকলে কাঁচ কলা না খাওয়াই ভালো। কোষ্ঠ্যকাঠিন্যের সমস্যাও অনেক সময়ে বাড়িয়ে দেয়।

ডায়রিয়া প্রতিরোধকঃ কাঁচ কলায় থাকে এনজাইম, যা ডায়রিয়া এবং পেটের নানা ইনফেকশন দূর করে। তাই ডায়রিয়া হলে চিকিৎসকেরা কাঁচ কলা খাওয়ার পরামর্শ দেন।

বৃক্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধিঃ কাঁচা কলা শরীরের ইলেক্ট্রোলাইটের ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং কিডনি বা বৃক্কের কাজে সহায়তা করে। প্রতিদিন কাঁচা কলা খেলে বৃক্কের সমস্যা দূর হয়, বিশেষ করে ‘কিডনি ক্যান্সার’।

পুষ্টির শোষণঃ কাঁচা কলায় থাকা ‘শর্ট চেইন ফ্যাটি অ্যাসিড’ শরীরে পুষ্টি শোষণে সহায়তা করে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, এই ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড শরীরের পুষ্টি শোষণ বিশেষ করে ক্যালসিয়াম শোষণ বাড়ায়।

বিপাক প্রক্রিয়ায় গতিঃ কাঁচা কলায় আছে অত্যাবশ্যকীয় খনিজ ও পুষ্টি উপাদান যা চর্বিকে শক্তিকে রূপান্তরিত করে। আর ভিটামিন বি সিক্স এনজাইম ভাঙতে শক্তি যোগায়। এই দুই কারণে বিপাক প্রক্রিয়া বাড়ে।

কাঁচা কলার এতসব গুনাবলি জানার পর আজ থেকে কী কাঁচকলা শব্দটা তার অর্থ পাল্টাবে না?