সীমান্ত পথ দিয়ে আসছে ভারতীয় গরু, হতাশ দেশি খামারিরা

২৭ই জুলাই, ২০২০ || ০১:২৩:২১
26
Print Friendly, PDF & Email

চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে করসপন্ডেন্ট:
রাজশাহী অঞ্চলের সবচেয়ে বড় পশুর হাট সয়লাব ভারত থেকে আসা গরুতে। হাটে উঠছে স্থানীয় খামারিদের লালনপালন করা দেশি গরুও। ফলে কোরবানির হাটেও গরুর দাম পাচ্ছেন না খামারি ও ব্যবসায়ীরা। করোনা এবং বন্যা এ সংকট আরও গভীর করে তুলেছে।

জানা গেছে, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের সীমান্ত পথে এখনও আসছে ভারতীয় গরু। এসব গরুর একটি বড় অংশ উঠছে সিটিহাটে। কোরবানি টার্গেট করে আগে থেকে আনা ভারতীয় গরুও হাটে তুলছেন লোকজন। ফলে দাম নেই দেশি গরুর।

রাজশাহী প্রাণিসম্পদ দপ্তরের দেয়া তথ্যমতে, জেলায় গরু-মহিষ রয়েছে প্রায় এক লাখ। ছাগল রয়েছে দুই লাখ ২৮ হাজার। অন্যান্য পশু রয়েছে আরও ৪২ হাজার।

সব মিলিয়ে কোরবানিযোগ্য পশু রয়েছে মোট ৩ লাখ ৭০ হাজার। কোরবানি শেষেও উদ্বৃত্ত থাকবে এক লাখ গবাদিপশু। এ পরিস্থিতিতে ভারত থেকে গরু আমদানির প্রয়োজন নেই।

তবু বানের পানির মতো ভেসে আসছে ভারতীয় গরু। এতে হতাশ স্থানীয় খামারিরা। তারা বলছেন, এবার বন্যার কারণে চাষিরা গবাদিপশু কম দামেই বিক্রি করে দিচ্ছেন। কিন্তু করোনার কারণে হাট জমছে না।

এমনিতেই পশুর দাম কম। এর উপরে চেপে বসেছে ভারতীয় গরু। বাধ্য হয়ে কম দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে দেশি গরু। এতে খামারি ও ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

বিজিবির রাজশাহীর-১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দিন মাহমুদ জানান, কিছু ক্যাটল করিডর দিয়ে বৈধভাবে গরু আসছে। অবৈধভাবে গরু আসার একেবারেই সুযোগ নেই। বন্যা পরিস্থিতির কারণে পদ্মার একটি বড় অংশ নজরদারিতে হিমশিম খাচ্ছে বিজিবি। এরই সুযোগ নিতে পারেন চোরাকারবারিরা। তবে অবৈধ গরু চোরাচালান ঠেকাতে গ্রামবাসীদের নিয়ে সীমান্ত পাহারা দিচ্ছে বিজিবি।

এদিকে, অন্যান্য বছরের মতো এবার বাড়ি বাড়ি ঘুরে গরু কেনায় আগ্রহী ব্যাপারিদের দেখা নেই। এছাড়া ক্রেতার অভাবে হাটে নিয়েও গরু বিক্রি করা যাচ্ছে না। প্রতি বছর কোরবানির হাট শুরুর মাস দেড়েক আগে থেকেই দেশের বিভিন্ন এলাকার গরুর ব্যাপারিরা বাড়ি বাড়ি ঘুরে গরু কেনা শুরু করেন।

জেলার তানোরের খামারি আবদুস সালাম বলেন, অন্যান্য বছর গরুর ব্যাপারিরা এতো দিনে ঢাকার কোরবানির হাটকে সামনে রেখে গরু পালনকারীদের কাছ থেকে গরু কেনা শুরু করে দেন।

কিন্তু এবার বেশিরভাগ ব্যাপারি ভয়ে গরু কিনছেন না। হাটে নিয়ে গেলেও ক্রেতারা মন মতো দাম বলছেন না। তাই বিক্রি হয়নি। তাই ঠিক করেছেন কোরবানির পরে এগুলো বিক্রি করবেন।

রাজশাহীর সিটি বাইপাস এলাকার খামারি আবদুল মালেক বলেন, বাড়িতে গরুর ব্যাপারি তো আসেই না। হাটে সাতটি গরু নিয়ে কয়েক দিন থেকে ঘুরছি। কিন্তু গরুর বাজার একেবারে কম। এ জন্য গরু বিক্রি নিয়ে খুবই চিন্তায় আছি। গরুকে যে খাদ্য খাইয়ে লালন-পালন করেছি সেই দামই উঠবে না বলে মনে হচ্ছে। করোনা আর ভারতীয় গরু আসার কারণে আমাদের দুরাবস্থা।

রাজশাহী সিটি হাটের ইজারাদার আতিকুর রহমান কালু বলেন, প্রথম দিকে হাটে তো ক্রেতাই ছিল না। এখন একটু একটু করে ক্রেতারা আসছেন। তিনি দাবি করেন, হাটে ভারতীয় গরু কিছু এলেও দেশির সংখ্যা বেশি। হাতে ক্রেতার চেয়ে গরুর সংখ্যা অনেক বেশি। তাই দাম কম।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. অন্তিম কুমার সরকার জানান, জেলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে গবাদিপশু রয়েছে। জেলায় কোরবানি ঈদে দুই লাখ গবাদিপশুর প্রয়োজন পড়ে। রয়েছে প্রায় সাড়ে তিন লাখ কোরবানির জন্য উপযুক্ত পশু। অতিরিক্ত পশু আর করোনার কারণে দামে প্রভাব পড়েছে।