ভগবানের আসনে বসিয়ে ইঁদুর পূজা!

২৯ই এপ্রিল, ২০১৯ || ০৮:০০:০৪
37
Print Friendly, PDF & Email

ভারতের রাজস্থান রাজ্যের বিকানের শহর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দূরে দেশনোক এলাকায় অবস্থিত করনি মাতার মন্দির। স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, হিন্দু সম্প্রদায়ের আরাধ্য দেবী দুর্গার আরেক রূপ এই করনি মাতা। করনি মাতা মন্দিরকে ঘিরে ছড়িয়ে রয়েছে অনেক পৌরাণিক কাহিনী।

ভগবানের আসনে বসিয়ে পূজা করা হচ্ছে ইঁদুর। অদ্ভুত এই ঘটনা ঘটছে ভারতের রাজস্থান রাজ্যের করনি মাতা মন্দিরে। অবতার হিসেবে ওই মন্দিরে থাকা প্রায় ২০ হাজার ইঁদুরকে প্রতিদিন পূজা দেওয়া হয়। শুধু পূজাই নয়, সম্মান ও শ্রদ্ধার সঙ্গে প্রতিদিন এসব ইঁদুরকে প্রসাদও খাওয়ানো হয়।

শোনা যায়, করনি মাতার সৎ ছেলে লক্ষ্মণ একবার স্থানীয় কপিল সরোবরে ডুবে মারা যায়। ওই সময় তিনি যমরাজের কাছে সন্তানের প্রাণভিক্ষা চেয়েছিলেন। কিন্তু যমরাজ সেই অনুরোধ না রেখে উল্টো করনি মাতার সব সন্তানকে ইঁদুর বানিয়ে দেন। সেই থেকে এই মন্দিরে ইঁদুর-পূজা করা হয়।

আবার এমনও শোনা যায়, অনেক বছর আগে ২০ হাজার সেনা যুদ্ধক্ষেত্র থেকে প্রাণভয়ে এসে আশ্রয় নেন রাজস্থানের দেশনোক অঞ্চলে। করনি মাতা ওই ২০ হাজার সেনাকে ইঁদুরে পরিণত করেন। সেই থেকে মন্দিরের ইঁদুরকে দেবীর অবতার হিসেবে দেখা হয়। এই ইঁদুর হত্যা করে কেউ পাপের ভাগিদার হতে চান না। এই মন্দিরে ইঁদুরকে শিশুর মতোই লালনপালন করা হয়।

এমন অনেক কল্পকাহিনীতে ঘেরা এই করনি মাতার মন্দির। প্রতিদিন অসংখ্য ভক্ত মন্দিরে এসে ইঁদুরদের যত্ন করে দুধ, নাড়ু ও অন্যান্য খাবার খাওয়ায়। মন্দিরের কোনো ইঁদুর মারা গেলে সেই ইঁদুরের ওজনে সোনা কিংবা রুপা দিয়ে ইঁদুর তৈরি করে দেন ভক্তরা। আনুমানিক ১৯০০ সালে নির্মিত অসাধারণ কারুকাজে খচিত করনি মাতার মন্দিরে ইঁদুর হাজার ক্ষতি করলেও এদের মারা হয় না। প্রতিবছর মার্চ থেকে এপ্রিল এবং সেপ্টেম্বর থেকে অক্টোবর মাসে করনি মাতার মন্দিরে বড় মেলা অনুষ্ঠিত হয়। ওই মেলায় দূরদূরান্ত থেকে মানুষ এসে ইঁদুর-পূজা করেন।