ভোলায় বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে হালিমা খাতুন গালর্স স্কুল এন্ড কলেজ প্রথম

১ই জুন, ২০২০ || ০৭:৩৭:১২
29
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, ভোলা:
এবারের ২০২০ সালের এসএসসি ও সমমানের ফলাফলে ভোলা জেলায় বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে প্রথমস্থান অধিকার করেছে ভোলার উত্তরের অন্যতম নারী বিদ্যাপিঠ ‘হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ’। সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে চতুর্থ স্থান অধিকার করে ও সদর উপজেলার মধ্যে পাশের হারে ৩য় স্থানে জায়গা করে নেয় প্রতিষ্ঠানটি। পাশের হার ৯১ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

রবিবার (৩১ মে) ফলাফল ঘোষণা করলে হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা আনন্দ-উল্লাসে মেতে উঠে। এই সাফল্য বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা এম মোকাম্মেল হক, শিক্ষক-শিক্ষিকা, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও দক্ষ পরিচালনার কারণে পেয়েছেন বলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো: টিপু সুলতান জানিয়েছেন।

জানা গেছে, ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ভোলার উত্তরের অন্যতম নারী বিদ্যাপিঠ হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ৫৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। যার মধ্যে ৫৩ জন পরীক্ষার্থী সাফল্যের সাথে উত্তীর্ণ হয়। বিগত দিনের রেকর্ড ভেঙ্গে এ বছর হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ ৯১ দশমিক ৩৮ শতাংশ পাশের হার নিয়ে বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ভোলা জেলায় প্রথমস্থান অধিকার করে। সরকারী ও বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে জেলায় ৪র্থ স্থান এবং সদর উপজেলায় ৩য় স্থান অধিকার করে প্রতিষ্ঠানটি। সরকারী ও বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে জেলায় প্রথমস্থান অধিকার করেছে ভোলা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়। পাসের হার ৯৮ দশমিক ৩৫ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে ভোলা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। পাশের হার ৯৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ। তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে চরফ্যাশন উপজেলার সরকারি টিবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। পাশের হার ৯২ দশমিক ১৭ শতাংশ। ৪র্থ স্থান অধিকার করেছে হালিমা খাতুন গালর্স স্কুল এন্ড কলেজ। পাশের হার ৯১ দশমিক ৩৮ শতাংশ। এমন ফলাফলে হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এম মোকাম্মেল হক, শিক্ষক-শিক্ষিকা, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন।

হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো: টিপু সুলতান বলেন, প্রতিষ্ঠাতা এম মোকাম্মেল হক স্যারের দিকনির্দেশনা, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের ঐকান্তিক চেষ্টা এবং অভিভাবকদের সচেতনতার কারণে এই সাফল্য অর্জন করতে পেরেছি। ভোলার উত্তরের মফস্বল এলাকার এই প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সচিব এম মোকাম্মেল হক স্যারের পরামর্শে শিক্ষক-শিক্ষিকাদেরকে নিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম ও দক্ষতার সাথে পরিচালনা করেছি। অভিভাবকদেরকে নিয়ে বিভিন্ন সময় শিক্ষার মানন্নোয়নে পরামর্শ করেছি। সকলের পরামর্শ, পরিশ্রম ও সুদক্ষ পরিচালনার কারণে আজ আমরা এই সাফল্য অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি বলেন, প্রতিষ্ঠাতা, গভর্নিং বডির সদস্য, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবকদের পরামর্শ, দক্ষ পরিচালনা ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে আগামীদিনেও আরও ফলাফল উপহার দেওয়ার চেষ্টা করবো। এ জন্য সকলের সহযোগীতা ও পরামর্শ একান্ত প্রয়োজন। এই ফলাফলের জন্য মো: টিপু সুলতান হালিমা খাতুন গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা এম মোকাম্মেল হক স্যার, গভর্নিং বডির সদস্য, শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবক ও শুভাকাংখীদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।