তিন বছরের শিশু ধর্ষণের প্রতিবাদে উত্তাল কাশ্মীর

১৪ই মে, ২০১৯ || ০৮:৫৮:৪২
24
Print Friendly, PDF & Email

তিন বছরের একটি শিশুর ধর্ষণের বিচার চেয়ে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে হাজার হাজার মানুষ রাস্তায় নেমে এসে বিক্ষোভ করেছেন। বিক্ষোভকারীরা ধর্ষকের মৃত্যুদণ্ডের দাবি জানিয়েছেন। সোমবার কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগরে ধর্ষণের প্রতিবাদ জানাতে সমবেত হন হাজারেরও বেশি মানুষ।

এসময় পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এতে বেশ কয়েকজন আহতও হন। তবে আহতদের মধ্যে পুলিশের সংখ্যাই বেশি বলে জানা গেছে।

এক বিবৃতিতে পুলিশ জানায়, বিক্ষোভকারীরা মহাসড়ক অবরুদ্ধ করে রাখে। তাদেরকে সেখান থেকে সরানোর জন্য বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করলে তারা পুলিশের প্রতি পাথর ছুঁড়ে মারে।  এর ফলে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়।

পুলিশ জানায়, খালি একটি স্কুলে তিন বছরের শিশুটিকে প্রতিবেশি একজন লোভ দেখিয়ে নিয়ে গিয়েছিল। পরবর্তীকালে লোকটি তাকে ধর্ষণ করে। গত বুধবার এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়।

কাশ্মীরজুড়ে ধর্ষণের ঘটনা ক্রমেই বেড়ে যাচ্ছে। এমনকি তিন বছরের এই শিশুর ধর্ষণের সপ্তাহখানেক আগে একজন কিশোরীর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, ওই কিশোরীকে তার পিতা বেশ কয়েকবার ধর্ষণ করেছিল। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ধর্ষণের বিরুদ্ধে জনমত ক্রমশই তীব্র হয়ে উঠছিল।

এধরনের পরিস্থিতিতে বিচ্ছিন্নতাবাদী ধর্মীয় নেতা মওলানা মাসুর আব্বাস নতুন করে ঘটা ধর্ষণের প্রতিবাদ জানাতে ধর্মঘটের ডাক দেন। তার ডাকে সাড়া দিয়ে সোমবার মুসলিম জনসংখ্যা অধ্যুষিত কাশ্মীরের দোকানপাট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং স্কুল কলেজসহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়।

মওলানা আব্বাস সাংবাদিকদের বলেন, ‘উপত্যকায় ক্রমবর্ধমান ধর্ষণের ঘটনায় জনসাধারণকে সচেতন করে তোলার লক্ষ্যে আমরা আজকে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছি। আমরা ধর্ষণের শিকার শিশুটির জন্য ন্যায় বিচার চাই।’

উল্লেখ্য, ভারতজুড়ে ধর্ষণের হার ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিবছরই এই সংখ্যা আশংকাজনকভাবে বেড়ে যাচ্ছে। গত বছর জম্মু কাশ্মীরে ৮ বছরের মুসলিম একটি বালিকাকে ধর্ষণ করে হত্যার ঘটনাটি বিশ্বজুড়ে ব্যাপক আলোড়ন তুলেছিল।