ফোনালাপ ফাঁস: চাকরিপ্রার্থীর স্ত্রী ও রাবি প্রোভিসির দর-কষাকষি

29

রাবি করসপন্ডেন্ট, রাজশাহীঃ
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে এক চাকরি প্রত্যাশীর স্ত্রীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো. জাকারিয়ার দর-কষাকষির একটি অডিও (ফোনালাপ) প্রতিবেদকের হাতে এসেছে। ৪১ সেকেন্ডের এই ফোনালাপটি তুলে ধরা হলো-

উপ-উপাচার্য : হ্যাঁ, সাদিয়া। আমি প্রফেসর জাকারিয়া (চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া), প্রোভাইস চ্যান্সেলর।
চাকরি প্রত্যাশীর স্ত্রী : আসসালামু আলাইকুম স্যার।

উপ-উপাচার্য : ওয়ালাইকুম সালাম। আচ্ছা মা, একটা কথা বলতো, তোমরা কয় টাকা দেওয়ার জন্য রেডি।
চাকরি প্রত্যাশীর স্ত্রী : স্যার, সত্যি কথা বলতে…

উপ-উপাচার্য : না না, সত্যি কথাই তো বলবা। উপরে আল্লাহ তায়ালা, নিচে আমি।
চাকরি প্রত্যাশীর স্ত্রী : অবশ্যই, অবশ্যই। স্যার, আপনি যেহেতু তার অবস্থা জানেন, আরেকটা বিষয় এখানে স্যার, সেটা হচ্ছে, আপনি হুদার… মানে, এমনিতে সে কতটা স্ট্রিক…, আপনি বোধ হয় এটাও জানেন স্যার, একটু রগচটা ছেলে।

উপ-উপাচার্য : আচ্ছা রাখো রাখো, এখান থেকে কথা বলা যাবে না।

দর-কষাকষির বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোভিসি চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, আজ থেকে আস্তাগ ফিরুল্লাহ টেলিফোন কোন কথাই হবে না।

জানা গেছে, ওই চাকরি প্রত্যাশীর নাম মোহাম্মদ নুরুল হুদা। তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ থেকে ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষে অনার্সে ৩.৬৫ ও মাস্টার্সে ৩.৬০ পান। আইন অনুষদে সেরা হওয়ায় ২০১৮ সালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় স্বর্ণপদক এবং একই বছর প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পান। তার বাড়ি উপ-উপাচার্যের এলাকা লালমনিরহাটে। তবে ওই বিভাগে নতুন তিনজন প্রভাষক নিয়োগ দিলেও সেখানে তার স্থান হয়নি।

যারা নিয়োগ পেয়েছেনঃ
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে তিনটি প্রভাষক পদের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি জাতীয় ও স্থানীয় দৈনিকে প্রকাশিত হয়। গত বছরের ১৩ নভেম্বর ওই নিয়োগ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। আর ১৭ নভেম্বর সিন্ডিকেট সভায় নিয়োগ অনুমোদিত হয়। এর পরদিন ১৮ নভেম্বর নিয়োগপ্রাপ্তরা বিভাগে যোগদান করেন।

ওই নিয়োগে প্রভাষক পদে বিভাগে যোগদান করেছেন ফোনালাপ ফাঁস হওয়া উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো. জাকারিয়ার মেয়ের জামাই সাইমুন তুহিন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নুরুল ইসলাম ঠান্ডুর মেয়ে নূর নুসরাত সুলতানা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী বনশ্রী রানী।