পুলিশ কর্মকর্তা বাবার পিস্তল দিয়ে ছেলের আত্মহত্যা

11

স্টাফ করসপন্ডেন্ট, ঢাকাঃ
রাজধানীর আজিমপুরে সাদিক বিন সাজ্জাদ নামে এক কলেজছাত্র নিজের বাসায় বাবার পিস্তল দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টার দিকে রাজধানীর আজিমপুরে সরকারি কোয়ার্টারের ৬৭ নম্বর ভবনে এই ঘটনা ঘটে। সাদিক সিটি কলেজের এইচএসসির দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

তার বাবা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের রমনা অপরাধ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান।

পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে সাদিক আত্মহত্যা করেছে।

জানা গেছে, সকালে সবাই যখন ঘুমে ছিলেন তখন নিজের শয়ন কক্ষে বাবার লাইসেন্স করা পিস্তল দিয়ে আত্মহত্যা করেন সাদিক। তার কক্ষ ভেতর থেকে লাগানো ছিল।

ডিএমপির ডিসি ও এডিসি পদমর্যাদার দুইজন কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লালবাগ জোনের ইন্সপেক্টর (অপারেশন) আসলামুদ্দিন বলেন, একটা লাইসেন্সকৃত অস্ত্র দিয়ে রমনা জোনের ডিসির ছেলে সাদিক আত্মহত্যা করেছেন।

পুলিশ ডিসির আগ্নেয়াস্ত্রটি জব্দ করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা। ময়না তদন্তের জন্য সাদিকের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সম্প্রতি ডিএমপির রমনা বিভাগের নতুন উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) হিসেবে যোগদার করেন সাজ্জাদুর রহমান। গত ২ সেপ্টেম্বর (সোমবার) রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার মারুফ হোসেন সরদারকে ঢাকার এসপি হিসেবে বদলি করা হয়। তার স্থলাভিষিক্ত হন সাজ্জাদুর রহমান।

সাজ্জাদুর রহমান ২০০৩ সালে বাংলাদেশ পুলিশে সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) হিসেবে যোগদান করেন। এরপর তিনি সিলেট, নীলফামারী ও ময়মনসিংহ জেলায় সার্কেল এএসপি ছিলেন। ২০১০ সালে জাতিসংঘ মিশনে ইউএনপিওএল লাইবেরিয়ায় যান। সেখানে তিনি লজিস্ট্রিক সেকশনের টিম লিডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। মিশন শেষে করে ২০১২ সালে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন। ২০১৫ সালে তিনি পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ডিসি (পশ্চিম) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর তিনি সাতক্ষীরার এসপির দায়িত্ব পান।