বনের জমি দখল: ফালুর বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দুদকের

18

সিনিয়র করসপন্ডেন্ট, ঢাকাঃ
বন বিভাগের জমি দখল করার মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা পরিষদের সাবেক সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালুসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। ফালু ছাড়া বাকি আসামিরা হলেন, ভালুকা উপজেলার সাবেক সাব-রেজিস্ট্রার ফজলার রহমান (সাময়িক বরখাস্ত), জমির দলিল লেখক আকরাম হোসেন জুয়েল, জমির ‘ভুয়া’ মালিক রুহুল আমিন, খোকা মিয়া, সুফিয়া খাতুন ও ফাতেমা খাতুন।

সোমবার (২৩ সেপ্টেম্বর) কমিশন থেকে এ অনুমোদন দেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য।

জানা যায়, মোসাদ্দেক আলী ফালুর নামে ময়মনসিংহের ভালুকা থানার পালগাঁও মৌজায় ৬টি দলিলের মাধ্যমে ৯ দশমিক ৬৪ একর জমি রেজিস্ট্রি হয়। এ ঘটনায় ২০১৭ সালের ২৯ অক্টোবর স্থানীয় থানায় ৬টি মামলা করে দুদক। ওই জমি দলিল করতে সহায়তা করার অভিযোগে আরো ১৫ জনকে এসব মামলায় আসামি করা হয়।

দুদকের ময়মনসিংহ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রাম প্রসাদ মণ্ডল এই মামলাটি তদন্ত করেন।

দুদক সূত্র জানায়, ২০১৬ সালের ৩ অক্টোবর ভালুকা উপজেলা ভূমি অফিস থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে সংরক্ষিত বনভূমি হিসাবে চূড়ান্তভাবে ঘোষণা না হওয়া পর্যন্ত গেজেটভুক্ত ওই জমি হস্তান্তর, নামজারি, জমা-খারিজ, রেকর্ড সংশোধন ইত্যাদি কার্যক্রম স্থগিত রাখার নির্দেশনা জারি করা হয়েছিল। একই সঙ্গে বন বিভাগের গেজেটভুক্ত জমি রেজিস্ট্রি করা হয়ে থাকলেও তা বাতিল করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ময়মনসিংহ বিভাগীয় বন কর্মকর্তার কার্যালয়কে বলা হয়।

ওই বিজ্ঞপ্তির পরও সাব রেজিস্ট্রার ফজলার রহমান আইন ও বিধি বিধান অনুসরণ না করেই অবৈধ সুবিধা নিয়ে দালাল চক্রের যোগসাজশে ৬টি দলিলে রেজিস্ট্রি করে সরকারি সম্পত্তি ফালুকে হস্তান্তর করা হয় বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়। ছয়টি মামলার মধ্যে এ পর্যন্ত চারটি মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করেছে দুদক।