৩৪টি টিভি চ্যানেলের জন্য ১ অক্টোবর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

19

ঢাকা ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ (বাসস):
দেশের সকল টিভি চ্যানেল আগামী ১ অক্টোবর থেকে দেশের প্রথম যোগাযোগ স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ (বিএস) এর ফিড ব্যবহার করে পূর্ণাঙ্গ অনুষ্ঠান সম্প্রচার শুরু করবে।

বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড (বিসিএসসিএল) এর চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ আজ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ১ অক্টোবর দেশের ৩৪টি টিভি চ্যানেলের সবকটিতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ (বিএস-১) এর সেবা অনুষ্ঠানিকভাবে চালু করবেন।
তিনি বলেন, সম্প্রতি স্থানীয় চ্যানেলগুলো বিএস-১ এর মাধ্যমে তাদের সম্প্রচার কার্যক্রম সফলভাবে পরিচালনা করতে সক্ষম হয়েছে। আরো ১৫টি টিভি চ্যানেলও শিগগির তাদের সঙ্গে যোগ দিবে।

ড. মাহমুদ বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই বিএস-১ এর ৪০ শতাংশ সক্ষমতা বিক্রি করে দিয়েছি। আগামী দিনগুলোতে বাকি সক্ষমতাও বিক্রি হয়ে যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

বেসরকারি টিভি চ্যানেল মালিক এসোসিয়েশনের একটি প্রতিনিধি দল গত ২৮ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন। তারা বলেন, আগামী ১ অক্টোবর বিএস-১ এর মাধ্যমে তারা সকল বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার কার্যক্রম সম্পন্ন করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আন্তরিকভাবে কাজ করছেন।
পাশাপাশি, বিসিএসসিএল টিভি চ্যানেল মালিকদের খরচ কমিয়ে আনতে আর্থস্টেশনের পরিবর্তে গ্রাউন্ড স্টেশনের সঙ্গে ফাইবার অপটিক ক্যাবলের মাধ্যমে সকল টিভি চ্যানেল সংযুক্ত করেছে।

ফরাসি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান থ্যালেস অ্যালেনিয়া স্পেস গত বছরের নভেম্বরে বিএস-১ এর নিয়ন্ত্রন কর্তৃত্ব বিসিএসসিএল-এর কাছে হস্তান্তর করে। ২০১৮ সালের ১২ মে ফ্লোরিডা থেকে এটি মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়।

দক্ষিণ এশীয় ফুটবল ফেডারেশন (সাফ) চ্যাম্পিয়ন ২০১৮ সম্প্রচারের মাধ্যমে প্রথম বিএস-১ এর সফল সম্প্রচার করা হয়।
বিসিএসসিএল প্রতিবেশী চারটি দেশসহ ৬টি দেশে বিএস-১ এর সংযোগ বাজারজাত ও বিক্রয় করার জন্য আন্তর্জাতিক কনসালটেন্সি ফার্ম থাইকমকে ভাড়া করেছে। এই থাই ফার্মটি বর্তমানে বিশটি দেশে কাজ করছে। ২ হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা ব্যায়ে বিএস-১ উৎক্ষেপণ করা হয় এবং পরিকল্পনা অনুযায়ী বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরুর ৭ বছরের মধ্যে এটি ব্রেক ইভেন্ট পয়েন্টে পৌঁছুবে।

জিওস্টেশনারি স্লটের ১১৯.১ পূর্বে অবস্থিত বিএস-১ সার্ক দেশ সমূহ এবং ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, মিয়ানমার, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান, উজবেকিস্তান এবং কাজাকস্তানের কিছু অংশ কাভার করবে। ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, ভারত, শ্রীলংকা, নেপাল, এবং ভুটান পুরোপুরি কাভার করবে। ফলে ব্যবসার জন্য এই ছয়টি দেশ বেছে নেয়া হয়েছে।