রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ পাচ্ছেন আছাদুজ্জামান মিয়া

54

ঋত্বিক তারিক, ঢাকাঃ
ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) ‘র অত্যন্ত সফল পুলিশ কমিশনার হিসেবে গোটা পুলিশ বাহিনীতেই যাঁর সুনাম সবার মুখে মুখে তিনি হচ্ছেন চৌকস ও দক্ষ অন্যতম শীর্ষ পুলিশ অধিকর্তা আছাদুজ্জামান মিয়া। ডিএমপির নিষ্ঠাবান কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়াকে রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। এ লক্ষ্যেই তাকে ১৪ আগস্ট এক মাসের জন্য ডিএমপির কমিশনার পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয় সরকার। ১৩ আগস্ট অবসরে যাওয়ার কথা ছিল আছাদুজ্জামান মিয়ার।

ডিএমপি কমিশনার হিসেবে দীর্ঘ পৌনে পাঁচ বছর যে কর্মদক্ষতার পরিচয় তিনি দিয়েছেন, এই নিয়োগের মাধ্যমে তারই মূল্যায়ন করা হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়।
জানতে চাইলে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি (গ্রেড-১ সচিব) পদমর্যাদার কর্মকর্তা ও ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি বিষয়টি পজেটিভ-নেগেটিভ কিছুই বলব না। যেহেতু এখনও এ সংক্রান্ত দাফতরিক কোনো পত্র পাইনি। আর অফিসিয়াল পত্র না পাওয়া পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করাও ঠিক হবে না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সম্প্রতি জাতীয় নিরাপত্তা কমিটি পুনর্গঠন করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। ২২ মে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনও জারি করা হয়। প্রধানমন্ত্রীকে আহ্বায়ক করে ২৯ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটির সচিব হিসেবে একটি পদ সৃষ্টি করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। ওই সচিব পদেই আছাদুজ্জামান মিয়াকে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রকাশিত প্রজ্ঞাপনে কমিটিকে সাচিবিক সহায়তা প্রদানের কথা উল্লেখ করা আছে।

কমিটির কার্যপরিধি হবে- দেশের নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষাসংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যাবলী ও কার্যক্রম পুনরীক্ষণ, দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তাজনিত পরিস্থিতির মূল্যায়ন ও পুনরীক্ষণ, দেশের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়াদির ওপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান এবং প্রয়োজনবোধে মন্ত্রিসভার জন্য সুপারিশ প্রদান।

এছাড়া বিআরটিএ’র চেয়ারম্যান, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বিআইডব্লিউটিএ অথবা বিআইডব্লিউটিসি’র চেয়ারম্যান পদেও আছাদুজ্জামান মিয়ার চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের কথা শোনা যাচ্ছে।

ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়ার রয়েছে দীর্ঘ ৩২ বছরের বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ার।
১৯৬০ সালের ১৪ আগস্ট ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় জন্ম নেন আছাদুজ্জামান মিয়া। ১৯৮৮ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন তিনি।

সিলেট, সুনামগঞ্জ, পাবনা, টাঙ্গাইলসহ খুলনা, চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিভাগ এবং বিভিন্ন জেলা ও রেঞ্জে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালনের পর হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজিও হন তিনি। ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি ডিএমপি কমিশনার পদে যোগ দেন অত্যন্ত চৌকস এই পুলিশ কর্মকর্তা।