সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতু সংযোগ সড়কে দীর্ঘ যানজট

9
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন রিপোর্ট:
সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম পাড় থেকে হাটিকুমরুল মোড় পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটারজুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সোমবার (২ আগস্ট) ভোর থেকেই মহাসড়কে উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকাগামী যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকে। অতিরিক্ত যানবাহনের চাপ সেই সঙ্গে গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হওয়ায় এ যানজট দেখা দিয়েছে বলে জানান চালকরা।

যানজটের ফলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বিভিন্ন যানবাহন আটকে রয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন চালক ও যাত্রীরা। মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাসের পাশাপাশি ট্রাক, পিকআপ, মাইক্রোবাসসহ বিভিন্ন পরিবহনে গাদাগাদি করে যাত্রীরা ঢাকায় ফিরতে দেখা গেছে।

রংপুর থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাসের চালক আব্দুল কাদের জানান, গতকাল রাত ৮টায় রংপুর থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করেছে। কিন্তু ভোরে সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল গোলচত্বরে এসে যানজটে আটকা পড়েছি। সকাল ৯টার বেশি বাজলেও এখনো বঙ্গবন্ধু সেতু পার হতে পারিনি।

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসাদ্দেক হোসেন জানান, উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে গার্মেন্টস কর্মীবাহী বিপুল সংখ্যক গাড়ি ছুটেছে ঢাকার দিকে। অতিরিক্ত যানবাহনের কারণেই মহাসড়কে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। যানবাহনের অতিরিক্ত চাপ সামলাতে মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে জেলা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ কাজ করছে।

এদিকে, সরকার কর্তৃক ঘোষণা অনুযায়ী রোববার (১ আগস্ট) থেকে গার্মেন্টস ও কলকারখানা খুলে দেওয়ায় ঢাকায় কর্মস্থলে ফিরছেন পোশাক শ্রমিকরা।

গত শনিবার (৩১ জুলাই) সংবাদমাধ্যমকে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, কঠোর বিধিনিষেধ বা লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হবে কিনা তা জানা যাবে মঙ্গলবার (৩ আগস্ট)। পরিস্থিতি পর্যালোচনা ও আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবেও বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১ থেকে ৭ জুলাই কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। পরে তা ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ঈদুল আজহার কারণে ১৫ থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত বিধিনিষেধ শিথিল করা হয়। পরে ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত ‘কঠোরতম বিধিনিষেধ’ জারি করে সরকার।

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, শুরু হওয়া দুই সপ্তাহের লকডাউনের বিধিনিষেধ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন গত ১৩ জুলাই জারি করে সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, করোনা ভাইরাসজনিত সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হলো।