বিয়ের জন্য চাপ দেওয়ায় স্কুলছাত্রী প্রেমিকাকে গলা কেটে হত্যা

27
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, কুষ্টিয়া:
আত্মীয়-পরিজন সবকিছু ছেড়ে রাতের আঁধারে প্রেমিকের কাছে গিয়েছিল স্কুলছাত্রী প্রেমিকা। এরপর বিয়ের জন্য চাপ দেয়ায় প্রেমিকা নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে চাকু দিয়ে হত্যা করে কলেজছাত্র কিশোর প্রেমিক। ঘটনাটি কুষ্টিয়ার মিরপুরের।

বুধবার (১৪ জুলাই) মামলা করার চার ঘণ্টার মধ্যে অভিযুক্ত ওই কিশোরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) দুপুর ২টায় ব্রিফিং করেন কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার খাইরুল ইসলাম।

পুলিশ সুপার এই হত্যাকাণ্ডকে লোমহর্ষক উল্লেখ করে বলেন, আসামিকে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আলামত জব্দ করা হয়েছে। বিশেষ করে যে চাকু দিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেটিও জব্দ করা হয়েছে। ছেলেটি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক প্রথম বর্ষে আর মেয়েটি নবম শ্রেণিতে পড়তেন। তাদের প্রেম ছিল। মেয়েটি বিয়ে করার জন্য চাপ দিলে ছেলের বাড়ি থেকে রাজি হয়নি। এই চাপের মধ্যেই মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) গভীর রাতে ওই তরুণী বাড়ি ছেড়ে প্রেমিকের কাছে চলে যায়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কলেজছাত্র প্রেমিক আপন পুলিশকে জানিয়েছে, প্রথমেই ওই মেয়েকে বাড়ি ফিরে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন তিনি। সে বাড়ি যেতে চায়নি। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। মানুষজন জানার আগেই ভয়ে তাকে নিয়ে মাঠের মধ্যে চলে যান। এরপর সে চাকু দিয়ে গলা কেটে ফেলে। চাকু ভেঙে গেলে রশি দিয়ে ফাঁস দিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

বুধবার বিকেল ৪টার দিকে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কে ভাঙা বটতলার কাছে একটি ভুট্টা ক্ষেত থেকে ওই তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১টার পর থেকে তরুণীকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

পুলিশ বলেছে, এখন পর্যন্ত ধর্ষণের কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। তবে তদন্ত করা হচ্ছে।