রাজধানীতে কাজ ছাড়াই ঘরের বাইরে যাওয়ায় গ্রেপ্তার সাড়ে ৫শ’, আটক সহস্রাধিক

6
Print Friendly, PDF & Email

স্পেশাল করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
করোনা সংক্রমণ রোধে দেশব্যাপী চলছে সাতদিনের কঠোর বিধিনিষেধ। প্রথমদিন সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থায় রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ অবস্থায় প্রথমদিন অযথা বাইরে বের হওয়ায় এ পর্যন্ত সারা দেশে আটক হয়েছে আট শতাধিক। এর মধ্যে শুধু মাত্র রাজধানীতে ঢাকা মহানগর পুলিশে ৮টি বিভাগে গ্রেফতার হয়েছে সাড়ে ৫ শ’ জন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশের পাশাপাশি তৎপর রয়েছে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বের হলেই করা হচ্ছে জেল-জরিমানাও। মানুষ সচেতন না হলে প্রয়োজনে আরও কঠোর হওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ফাঁকা ঢাকার ব্যস্ততম সড়ক। দুই একটি জরুরি গাড়ি ছাড়া রাস্তায় নেই কোনো যানবাহন। বৃহস্পতিবার (০১ জুলাই) সকালে রাজধানীর গুলশানের চিত্র ছিল এমন।

কেবল গুলশান নয়, রাজধানীর অন্যান্য প্রধান সড়কের চিত্র এমনই। কঠোর বিধিনিষেধের প্রথম দিন নগরবাসী ও যানবাহন নিয়ন্ত্রণে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় দেখা গেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের।

নগরীর মোড়ে মোড়ে জনসমাগম ঠেকাতে ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে চেকপোস্ট বসিয়ে দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায় তাদের। পুলিশের পাশাপাশি তৎপর ছিল সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যারাই বের হয়েছেন তাদের গুনতে হয়েছে কমপক্ষে ২০০ টাকা করে জরিমানা।

ঢাকায় প্রবেশ কিংবা বের হওযার মুখগুলোতে সবচেয়ে সতর্ক দেখা গেছে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে। পুলিশ ও সেনাবাহিনী বলছে, বেশীর ভাগ সাধারণ মানুষ নিজ থেকেই বিধি নিষেধ মেনে চলছেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২৫ বেঙ্গলের অধিনায়ক লে. কর্নেল শাহরিয়ার মোহাম্মদ আসিফ আফতাব বলেন, জনসচেতনতা বৃদ্ধি করার জন্য আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এছাড়াও প্রয়োজনবোধে যদি লকডাউন এনফোর্স করার জন্য আমাদের যদি কোনো কাজে দায়িত্ব পালন করতে হয়, বেসামরিক প্রশাসনের অনুরোধে আমরা সে সব দায়িত্ব পালন করব।

বন্ধ দোকানপাটও। অলিগলিতে খোলা থাকলেও চোখে পড়লেই বন্ধ করে দিচ্ছে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। তবে কাঁচাবাজার ঘিরে স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীনতা দেখা যায়।

পুলিশ বলেন, জনগণ মোটামুটি ভালোই সরকারের বিধিনিষেধ মেনে চলার চেষ্টা করছেন আর কিছু কিছু ঘটনা ঘটছে। অনেকে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে বের হচ্ছে সেগুলো আমরা প্রসিকিউশন দিচ্ছি।

সংক্রমণ রোধে মানুষকে ঘরে রাখতে বাধ্য করতে পুরনোদের পাশাপাশি আরও ১০৬ জন কর্মকর্তাকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়েছে সরকার। দায়িত্ব পালনকালে তারা বলছেন, জেল জরিমানা মূল উদ্দেশ্য নয়। করোনা বিস্তার রোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতেই তারা কাজ করছেন।

র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু বলেন, আমাদের নাগরিকরা কিন্তু সরকারের নির্দেশনার প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করেছেন।