নোয়াখালীতে ‘ঘুষ না দিয়ে’ পালাচ্ছিলেন চালক, অটোরিকশা থেকে পড়ে আহত কনস্টেবল!

8
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, নোয়াখালী:
নোয়াখালীতে চলমান লকডাউনে প্রধান সড়কে যাত্রী পরিবহন করায় ব্যাটারিচালিত একটি অটোরিকশা (ইজিবাইক) আটক করে থানায় নেওয়ার পথে এক পুলিশ কনস্টেবলকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে চালক ফারুক হোসেন।

এ সময় পুলিশ কনস্টেবল ওই চালককে থামানোর শত চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে এক পর্যায়ে অটোরিকশা থেকে ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হন।

রোববার (২৭ জুন) বেলা পৌনে ১২টার দিকে জেলা শহর মাইজদীর টাউন হল মোড়ের প্লাট রোডে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জেলা শহর মাইজদীর পৌরবাজার এলাকা থেকে অটোরিকশাটি নিয়ে থানার দিকে যাচ্ছিল পুলিশ কনস্টেবল প্রিয়তোষ দেওয়ান। অটোরিকশাটি শহরের গণপূর্ত বিভাগের সামনে পৌঁছালে চালক হঠাৎ করে অটোরিকশাটি বিপরীত দিকে ঘুরিয়ে ওই পুলিশ কনস্টেবলকে নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ কনস্টেবল প্রিয়তোষ দেওয়ান শোর-চিৎকার করলে চালক অটোরিকশাটি নিয়ে ভেতর দিকে ঢুকে যায়। এক পর্যায়ে প্রিয়তোষ অটোরিকশার পেছনের সিট থেকে চালককে থামানোর চেষ্টায় অটোরিকশা থেকে ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হয়।

পরে স্থানীয়রা দেড় কিলোমিটার ধাওয়া করে শহরের মেথর পট্টি এলাকায় অটোরিকশাসহ চালক ফারুককে আটক করে থানায় সোপর্দ করে।

চালক ফারুক হোসেন জানায়, সার্জেন্ট ইউসূফ তার অটোরিকশাটি আটক করে পাঁচ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। এ সময় অনেক কান্নাকাটি করেও পুলিশের মন গলাতে পারিনি। টাকা দিতে না পারায় পুলিশ অনেক গালমন্দও করেছে। এক পর্যায়ে অটোরিকশাটি থানায় নিয়ে যেতে তিনি কনস্টেবল প্রিয় তোষকে নির্দেশ দেন।

অটোরিকশাটি থানায় নিয়ে আটকে রাখলে পরিবার-পরিজন নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে চিন্তা করে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। এসময় কনস্টেবল প্রিয় তোষ অটোরিকশার পেছন সিট থেকে আমাকে মারধর করতে গিয়ে ছিটকে পড়ে গেছে।

নোয়াখালী ট্রাফিক বিভাগের টি.আই (প্রশাসন) মো. বখতিয়ার উদ্দীন জানান, চলমান লকডাউনে প্রধান সড়কে যাত্রী পরিবহন করায় ব্যাটারি চালিত ইজিবাইকটি আটক করে থানায় আনার নির্দেশ দেন এটিএসআই কাজী মো. ইউসূফ।

তিনি আরও বলেন, ইজিবাইকটি থানায় নিয়ে আসার পথে চালক ফারুক হোসন ইজিবাইকের পেছনের সিটে বসে থাকা কনস্টেবল প্রিয়তোষ দেওয়ানকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এসময় ইজিবাইক থেকে ছিটকে পড়ে প্রিয়তোষ আহত হন। স্থানীয় লোকজন চালক ফারুক হোসেনকে আটক করে থানায় সোপর্দ করেছে।

নোয়াখালী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো সাহেদ জানান রিকশা চালক ফারুকের বিরুদ্ধে কনস্টেবল প্রেয়তোষ বাদী হয় থানায় মামলা করেন। তাকে আদালতে হাজির কারার পর তার জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠিয়েছেন আদালত।