মাদারীপুর জেলা আ’লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন

19
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, মাদারীপুর:
মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন মোল্লার বিরুদ্ধে লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করার বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে মাদারীপুর সম্মিলিত মুক্তিযোদ্ধা সংসদ। শনিবার (২৬ জুন) সকাল ১০ ঘটিকার সময় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের ৩য় তলায় এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহজাহান হাওলাদারের সভাপতিত্বে তিনি অভিযোগ করে বলেন, মাদারীপুরের সর্বজন শ্রদ্ধেয় মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা, এ্যাডভোকেট মৌলভী আছমত আলী খান ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহকর্মী ও সহচর।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন কেন্দ্রীয় সদস্য, মাদারীপুর মহকুমা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন নেতৃত্ব ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আছমত আলী খান এমপি সম্পর্কে বিগত ২০ মে রাজৈরে এক মতবিনিময় সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন মোল্লা কী বলেছেন? তিনি বলেছেন-সাবেক নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খানের বাবা কি মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলেন, আপনারা কেউ জানেন? তার অনুসারী বলেন, শুনিও নাই।

শাহজাহান হাওলাদার আরো বলেন, এমন একজন ব্যক্তি মরহুম আছমত আলী খানকে নিয়ে যে কটুক্তি করেছে তার বিরুদ্ধে আমরা আইনগত পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। আমরা খুব শীঘ্রই তাকে উকিল নোটিশ পাঠাবো।

মামলার বাদী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: মকবুল হোসেন মিয়া বলেন, মাদারীপুরের সর্বজন শ্রদ্ধেয় মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা, এ্যাডভোকেট মৌলভী আছমত আলী খানকে নিয়ে একটি মতবিনিময় সভায় যে কটুক্তি করেছে তাতে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করে আমরা পারি না।

আমরা আশা করবো শাহাবুদ্দিন মোল্লা তার যে কৃতকর্ম, তার যে বক্তব্য তিনি উকিল নোটিশ পাওয়ার পর তা প্রত্যাহার করবেন এবং মরহুম মৌলভী আছমত আলী খানের পরিবারবর্গের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করবেন।

মাদারীপুর জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট গোলাম কিবরিয়া হাওলাদার বলেন, ১৯৮৪ সাল থেকে মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আছমত আলী খানকে আমি ব্যক্তিগতভাবে তাঁকে চিনি। তাঁকে নিয়ে নোটিশ গ্রহীতা শাহাবুদ্দিন মোল্লা যে অপসাহস দেখিয়েছে তা আমার মোয়াক্কেলসহ আরো অনেককে মর্মাহত ও ব্যথিত করেছে, যা দেশের প্রচলিত আইনে বিচারযোগ্য অপরাধ।

তিনি আরো বলেন, এ বিষয়ে কেনো আপনার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না এ ব্যাপারে অত্র নোটিশ পাবার ৩০ দিনের মধ্যে আপনাকে আপনার বক্তব্য দ্বারা আমার মোয়াক্কেল ও আমাকে সন্তুষ্ট করবেন। অন্যথায় আপনার বিরুদ্ধে আমার মোয়াক্কেল প্রচলিত সকল আইনে প্রতিকার পেতে বাধ্য হবেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট ওবাইদুর রহমান খান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সৈয়দ আবুল বাশার, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন সেলিম, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিকসহ অনেকেই।