কুষ্টিয়ায় মধ্যরাত থেকে ৭ দিনের কঠোর লকডাউন

26
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, কুষ্টিয়া:
করোনা সংক্রমণ রোধ ও মৃত্যু ঝুঁকি এড়াতে শহরাঞ্চলের পাশাপাশি এবার কুষ্টিয়া জেলাজুড়ে সাত দিনের কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। রবিবার (২০ জুন) মধ্যরাত থেকে ২৭ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত লকডাউন বলবৎ থাকবে। মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের প্রেরিত পত্র ও করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সিদ্ধান্তে রাত ৯টার দিকে লকডাউন ও এ সংক্রান্ত গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।

কুষ্টিয়া জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট ও জেলা প্রশাসক মো: সাইদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত আরোপিত বিধি-নিষেধে উল্লেখ করা হয়, লকডাউন চলাকালে শিল্প-প্রতিষ্ঠান, সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, শপিং মল, দোকান, রেষ্টুরেন্ট, পর্যটন কেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার, বিনোদন কেন্দ্র, সাপ্তাহিক হাট/গরুর হাট ও চায়ের দোকান বন্ধ থাকবে।

এছাড়া জেলার অভ্যন্তরে আন্তঃজেলা ও দুরপাল্লার সব ধরনের গণপরিবহনসহ ইজিবাইক, থ্রি-হুইলার ও অন্যান্য যান্ত্রিক যানবাহনও চলাচল করতে পারেব না। তবে কাঁচাবাজর ও নিত্য প্রয়োজনীয় মুদি পণ্যের দোকান স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিদিন সকাল ৭টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে।

অপরদিকে, বিদ্যুৎ, পানি, কৃষি উপকরণ, খাদ্য-শষ্য পরিবহন, স্বাস্থ্য সেবা, ফায়ার সার্ভিস, জ্বালানি আইন-শৃংখলা বাহিনী, গণমাধ্যমসহ জরুরি পরিষেবা আরোপিত নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

রবিবার (২০ জুন) দুপুর ৩টায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন করোনা সংক্রান্ত কুষ্টিয়ার জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব সুলতানা আফরোজ। এদিকে লকডাউন চলাকালে আরোপিত বিধি-নিষেধ কঠোরভাবে অনুসরনের নির্দেশনা দেন কুষ্টিয়া জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো: সাইদুল ইসলাম।

গত দুইদিনে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ১৭ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। জেলায় সর্বমোট করোনা রোগী মৃত্যু সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫৭। এছাড়া জেলায় সংক্রমণ বাড়ছেই।