মিয়ানমার ইস্যুতে জাতিসংঘের প্রস্তাবে যে কারণে ভোট দেয়নি বাংলাদেশ

10
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন রিপোর্ট:
গত ১ ফেব্রুয়ারি সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে মিয়ানমারে সেনাবাহিনী। এরপর থেকেই দেশটিতে চলছে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ। সেই বিক্ষোভ দমনে সর্বাত্মক অস্ত্র ব্যবহার করে দেশটির সামরিক সরকার। নির্বিচারে মানুষ হত্যায় মেতে উঠে তারা। গ্রেপ্তার করা হয়েছে হাজার হাজার মানুষকে।

এমন পরিস্থিতিতে জনগণের ওপর প্রাণঘাতী অস্ত্রের ব্যবহার ও সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। তবে এ প্রস্তাবে রোহিঙ্গা সংকট এবং এ সমস্যার সমাধান নিয়ে কোনো সুপারিশ না থাকায় হতাশ হয়েছে বাংলাদেশ এবং ভোটদানেও বিরত থাকে।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশন এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রস্তাবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে কোনো পদক্ষেপের সুপারিশ না থাকায় বাংলাদেশ অসন্তোষ প্রকাশ করেছে। প্রস্তাবে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রত্যাবাসন নিয়ে কোনো সুপারিশ অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তাছাড়া বলা হয়নি রোহিঙ্গাদের নিরাপদে, স্থায়ীভাবে ও মর্যাদার সঙ্গে স্বভূমিতে ফেরত যাওয়ার জন্য রাখাইনে অনুকূল পরিবেশ তৈরির প্রয়োজনীয়তার কথাও।

শুক্রবার (১৯ জুন) নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্রস্তাবটি পাস হয়। প্রস্তাবের পক্ষে ১১৯টি ভোট পড়ে, বিপক্ষে ভোট দেয় শুধু বেলারুশ। বাংলাদেশ, ভারত, চীন, নেপাল, ভুটান, লাওস, থাইল্যান্ড, রাশিয়াসহ ৩৬টি দেশ ভোটদানে বিরত থাকে।

প্রস্তাবে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর প্রতি জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার এবং মানবাধিকারের প্রতি সম্মান জানানোর আহ্বান জানানো হয়েছে। তবে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে গৃহীত এ প্রস্তাব মিয়ানমার প্রত্যাখ্যান করেছে বলে জানিয়েছে সিঙ্গাপুরভিত্তিক সংবাদমাধ্যম চ্যানেল নিউজ এশিয়া।