পাঁচ দশকে রাজধানীতে রেকর্ড সর্বোচ্চ তাপমাত্রা

12
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন রিপোর্ট:
সাত বছরের মধ্যে রেকর্ড দাবদাহের কবলে দেশ। এই অবস্থায় বিপর্যস্ত জনজীবন। দক্ষিণাঞ্চলসহ বিভিন্নস্থানে বেড়ে গেছে ডায়রিয়ার প্রকোপ। আবহাওয়া অফিস বলছে, তীব্র দাবদাহ চলবে মের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত। এদিকে হিটস্ট্রোকের আশঙ্কার কথা জানিয়ে জনসাধারণকে যথাসম্ভব ঘরে থাকা ও তরল খাবার গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

সকাল থেকেই বইছে গরম হাওয়া। রোদের তেজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে তাপদাহ। প্রকৃতি আর প্রাণীকুল সবই অতিষ্ঠ যেন খরতাপে। এরই সঙ্গে থার্মোমিটারের পারদ চড়তে চড়তে তাপপ্রবাহে সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে উষ্ণ সময় পার করছে দেশ।

মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) রাজশাহীতে ৪১ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। যা ২০১৪ সালের পর দেশে সর্বোচ্চ। এদিন তিলোত্তমা নগরী ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা গত ৫ দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ।

আবহাওয়াবিদ এ কে এম রুহুল কুদ্দুস বলেন, ঢাকা, রাজশাহী, যশোর, কুষ্টিয়া ও খুলনা অঞ্চলের ওপর দিয়ে বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ। চট্টগ্রাম, রংপুর, সিলেট, বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে মাঝারি তাপপ্রবাহ, যা অব্যাহত থাকবে আরও কিছুদিন।

এদিকে, গরমের তীব্রতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থান দেখা দিয়েছে ডায়রিয়ার প্রকোপ। ঘটছে হিটস্ট্রোকের ঘটনাও।
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. খলিলুর রহমান বলেন, শুধু ডায়রিয়া নয় গরমের কিন্তু সবচেয়ে ভীত হলো হিটস্ট্রোক। এ সময় যে কেউ হিটস্ট্রোকে অজ্ঞান হয়ে যেতে পারে। এ জন্য এ গরমের মধ্যে যতটুকু সম্ভব ঠান্ডা জায়গাতে থাকা। তরল এবং ঠান্ডা পানি খাওয়া।’

আগামী কয়েক দিনও তাপদাহ অব্যাহত থাকার পূর্বাভাস দিয়ে আবহাওয়া অধিদফতর বলছে, বৃষ্টির দেখা পেতে দেশবাসীকে অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছু দিন।