ভারতীয় সিনেমা চলবে না পাকিস্তানে, ছিন্ন হবে সাংস্কৃতিক সম্পর্ক

13
Print Friendly, PDF & Email

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণার পর এবার সাংস্কৃতিক সম্পর্কও ছিন্ন করার ঘোষণা দিয়েছে পাকিস্তান। দেশটির প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও সম্প্রচার বিষয়ক বিশেষ দূত জানিয়েছেন, পাকিস্তানে কোনো ভারতীয় সিনেমা প্রচার করা হবে না। সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে ভারত কাশ্মীরকে স্বায়ত্তশাসন তুলে নিয়ে কেন্দ্র শাসনের আওতায় আনার প্রতিবাদে এসব পদক্ষেপ নিচ্ছে পাকিস্তান।

পাকিস্তানি গণমাধ্যম জিও নিউজের খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (৮ আগস্ট) গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে ভারতের সঙ্গে দেশটির সাংস্কৃতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ধাপ হিসেবে ভারতীয় সিনেমা প্রদর্শন নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন ফিরদৌস আশিক আওয়ান। তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও সম্প্রচার বিষয়ক বিশেষ দূত।

ফিরদৌস আশিক বলেন, কেবল সিনেমা নয়, সব ধরনের ভারতীয় সাংস্কৃতিক কনটেন্ট পাকিস্তানে নিষিদ্ধ করার জন্য একটি নীতি প্রণয়ন করা হয়েছে। সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে ভারত যা করেছে, তার জবাবে কাশ্মিরকে সমর্থন দিতে পাকিস্তান সম্ভাব্য সব ধরনের মাধ্যম ব্যবহার করবে।

এর আগে, ৩৭০ ধারা বাতিলের জবাবে ইসলামাবাদে নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে পাকিস্তান। একই সঙ্গে ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বন্ধেরও ঘোষণা দেয় দেশটি।

পাকিস্তানের ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিল (এনএসসি) জানায়, নয়া দিল্লির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক কমিয়ে আনবে ইসলামাবাদ। বিষয়টি নিয়ে জাতিসংঘেও আলোচনা তুলবে পাকিস্তান।

বুধবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নেতৃত্বে নিরাপত্তা কমিটির উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করা হয়। এরপর ইমরান খান বলেন, ভারতের ‘একপাক্ষিক ও অনৈতিক’ সিদ্ধান্ত দু’দেশের সম্পর্ক দুর্বল করে তুলেছে।

ওই বৈঠকের পর পাঁচটি সিদ্ধান্তের কথা জানায় পাকিস্তান সরকার। দেশটির সরকারের অফিশিয়াল টুইটার হ্যান্ডলে জানানো হয়, নয়াদিল্লির সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক কমিয়ে দেবে ইসলামাবাদ, বন্ধ করে দেবে ভারত-পাক দ্বিপাক্ষিক বৈদেশিক বাণিজ্য। এ ছাড়া দ্বিপাক্ষিক কূটনৈতিক সম্পর্ক পর্যালোচনা করে পুনর্বিন্যাস করা হবে।

বৃহস্পতিবার ফিরদৌস আশিকও এসব পদক্ষেপ বাস্তবায়নের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, জাতিসংঘে পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত ড. মালিহা লোধির মাধ্যমে বৈশ্বিক এই ফোরামে ভারতের ‘দখলকৃত’ কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা তোলা হবে। এছাড়া বিভিন্ন দেশের সরকার প্রধানের সঙ্গেও এই ইস্যুতে আলোচনা চলছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর এই বিশেষ দূত জানান, একযোগে কাশ্মীর নিয়ে ভারতের পদক্ষেপের নিন্দা জানিয়েছেন পাকিস্তানের সব সংসদ সদস্য। এই ইস্যুতে পাকিস্তানের কোনো ধরনের নমনীয়তা প্রদর্শন করবে না।

‘দখলকৃত’ কাশ্মীরে দুর্দশাগ্রস্ত পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ও বিভিন্ন নিরপেক্ষ সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানান ফিরদৌস আশিক। এ পরিস্থিতিতে পাকিস্তানের গণমাধ্যমকেও তিনি যথাযথ ভূমিকা পালনের আহ্বান জানান।