মৃত্যুদিনে কবিকে স্মরণ

74
Print Friendly, PDF & Email

অখিল পোদ্দার:
এতো এতো চোগলখোরের ভিঁড়ে
নিরাসক্ত দ্যুতির ছিদ্ররেখায়
কনটেইনার ভর্তি অক্সিজেন মিলেছিল
কবির কলমতন্ত্রীতে-
ভোররাতে বৃষ্টির পর শিউলিসকাল যেমন
খুলে দেয় তালাবদ্ধ দেহকারাগার
তেমনি-
পাহাড়ের চেয়েও উচ্চমান মানুষপ্রীতি!
জোছনার বদলে আলোকিত মরুদ্যান
করাচি থেকে ভাতশালা গাঁয়-
কবি গড়েছিলেন নতুন নক্ষত্রদেশ।
কান্ট-হেগেল-সার্তে কিংবা ডারউইন ছাড়িয়ে
ল্যামার্ক নয়তো থালেস;
অশীতিপর ফ্রয়েড-গ্রামসি,
নয়তো বৃদ্ধতাড়িত রবীন্দ্রনাথ,
রাইনার মারিয়া রিলকে আর শঙ্খ ঘোষেরা-
গোপনে আরেকজন ছিলেন কবিতার নন্দিনী
কাগজওয়ালা মন্টু কিংবা সালাম তাঁতী
একগোত্রে গড়েছিলেন ইউটোপিয়ান সাম্রাজ্য
পরাস্ত সূর্য-নিরস্ত্র চাঁদ-
নিখরচায় খাওয়া মজমপুর ডিপোর সেলিম কুলি।
এতো শত আত্মীয়দের ভিঁড়ে –
অবশেষে গুল্মগুহায় বসতি গড়লেন কবি।
অবশ্য এখন-
ভাতশালা কিংবা কনকর্ড আর্কেডিয়ায়
আগুন-আগুন চৈত্র চারিপাশ
এমন কী হলো জলজঙ্গল আকাশের ?
নিগূঢ় বৃষ্টিতে ভিজে
কূহকার ডাক দ্যায় নাসের-নাসের;
আজ নাসের মাহমুদের মৃত্যুদিন।