ভাইরাল: ‘ওই মহিলা আমার স্ত্রী নয়, শহীদুল ইসলাম ভাইয়ের স্ত্রী’ (অডিও)

90
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন রিপোর্ট:
নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে একটি রিসোর্টে অবরুদ্ধ হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক মুক্ত হয়েছেন। শনিবার (৩ এপ্রিল) বিকেল ৩টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রয়াল রিসোর্টের ৫ম তালার ৫০১ নম্বর কক্ষে অবরুদ্ধ ছিলেন তিনি।

এদিকে, মামুনুল হক মুক্ত হওয়ার পরপরই তার কণ্ঠের মতো শুনতে একটি অডিও সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। অডিও ক্লিপে শোনা যাচ্ছে, মামুনুল হকের মতো কণ্ঠে অপরপ্রান্তের এক নারীকে উদ্দেশ্য করে বলা বলছে, ‘ওই মহিলা আমার স্ত্রী নয়। সে শহীদুল ইসলাম ভাইয়ের স্ত্রী।’

অডিওটি সামাজিকমাধ্যম ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়িয়ে পড়েছে। বিডি পলিটিক্স নামে একটি ইউটিউব চ্যানেলেও অডিওটি আপলোড করা হয়েছে। যারা অডিওটি ছড়িয়েছে তারা এটি মামুনুল হক ও তার স্ত্রীর বলে দাবি করেছে। তবে এর সত্যতা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

অডিও ক্লিপে মামুনুল হকের মতো কণ্ঠে অপরপ্রান্তের নারীকে উদ্দেশ্য করে বলা হচ্ছে, ‘পুরা বিষয়টি আমি তোমাকে সামনে এসে বলবো। আমার সাথের ওই মহিলা আমাদের শহিদুল ভাইয়ের স্ত্রী। অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ায় আমি এমনটা বলেছি।’
উত্তরে অপরপ্রান্তের নারী বলেন, ‘আচ্ছা বাসায় আসেন। বাসায় আসলে এটা নিয়ে কথা বলবো।’

জবাবে পুরুষ কণ্ঠে বলা হয়, ‘তুমি অন্য কিছু মনে করো না। তোমাকে যদি কেউ কিছু জিজ্ঞাসা করে তুমিও বলবা, হ্যা আমি এসব সব জানি।’

এদিকে মুক্তির পর নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে স্ট্যাটাস দিয়েছেন মাওলানা মামুনুল হক। স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, ‘আমি নিরাপদে আছি, পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় পরিস্থিতি সম্পূর্ণ স্বাভাবিক! কেউ কোনো গুজবে বিভ্রান্ত হবেন না !!’

এর আগে সন্ধ্যায় মুক্ত হয়ে হেফাজত কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আপনাদের ভালোবাসার জন্য আমি কৃতজ্ঞ। সাংবাদিক ও পুলিশ আমার সঙ্গে কোনো খারাপ আচরণ করেনি। কিছু বাইরের লোক খারাপ আচরণ করেছে। আমি আমার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে এখানে ঘুরতে এসেছিলাম। আপনারা শান্ত থাকুন।’ মামুনুল হকের দাবি, সঙ্গে থাকা নারীর নাম আমিনা তৈয়ব। তিনি তার দ্বিতীয় স্ত্রী। আমিনাকে সঙ্গে নিয়ে রিসোর্টে ঘুরতে গিয়েছিলেন তিনি।

এর আগে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম সংবাদমাধ্যমকে জানান, মামুনুল হক নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানাধীন রয়েল রিসোর্টের একটি কক্ষে নারীসহ অবস্থান করছেন- এমন খবরে স্থানীয় লোকজন রিসোর্ট ঘেরাও করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে যায়। মামুনুল হক সঙ্গে থাকা নারী তার দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করলে পুলিশ তাকে নিরাপত্তা দিয়ে সেখান থেকে উদ্ধার করেছে।

স্থানীয় পুলিশ জানায়, মামুনুল হক সকালে রয়েল রিসোর্টের ৫০১ নম্বর কক্ষটিতে ওঠেন। দুপুর থেকেই এলাকায় চাউর হয় মামুনুল হক এক নারীসহ রিসোর্টে অবস্থান করছেন। এ খবরে এলাকার লোকজন রিসোর্টটি ঘেরাও করে। সোনারগাঁও থানার পরিদর্শক (তদন্ত) তবিদ রহমান সন্ধ্যায় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা মামুনুল হকের সঙ্গে কথা বলেছি। তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।’