ঢাকাই চলচ্চিত্রের কিং শাকিব খানের বিএনপি কানেকশনে তোলপাড়

131
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন রিপোর্ট:
এবার বাংলা চলচ্চিত্রের কিং খান খ্যাত শাকিব খানের বিএনপি কানেকশন ধরা পড়েছে। ‘অন্তরাত্মা’ চলচ্চিত্রের যখন শুটিং চলছে, ঠিক তখনই দুটি ছবি গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ছবিটিতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা শিমুল বিশ্বাসের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা লক্ষ্য করা গেছে। পাবনা শহরের কুটিপাড়ায় এই বিএনপি নেতার বাড়িতে সৌজন্য বিনিময়সহ শাকিব খানকে করমর্দনও করতে দেখা গেছে।

শাকিবের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠতার সূত্র ধরেই বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা শিমুল বিশ্বাসের বাড়িতে তিন দিন শুটিং করা হয়েছে ওই চলচ্চিত্রের। আর ওই বাড়িতে শাকিব খান শুটিং করেছেন একদিন। জানা গেছে, ‘অন্তরাত্মা’ চলচ্চিত্রে নায়কের খালুর বাড়ি দেখানো হয়েছে বিএনপি নেতা শিমুল বিশ্বাসের বাড়িটি।

এদিকে, জ্বালাও পোড়াও নাশকতার আন্দোলনসহ বিভিন্ন ঘটনায় নানাভাবে আলোচিত বিএনপি নেতা শিমুল বিশ্বাসের সঙ্গে শাকিব খানের সখ্যতার বিষয়টি কেউ মেনে নিতে পারছেন না। নেটিজেনরাও রীতিমত ক্ষুব্ধ।

এই চলচ্চিত্রের কাজ করতে এসেছেন কোলকাতা থেকে দর্শনা বনিকসহ আরও অনেকে। শাকিব খানের সঙ্গে এই চলচ্চিত্রে কাজ করতে আসা এসব বিদেশিদের যথাযথ অনুমোদনও নেই বলেও অনেকে অভিযোগ করেছেন।

পাবনায় ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খানের ঈদের সিনেমা ‘অন্তরাত্মা’র শুটিং এখনও চলছে। ৬ মার্চ শনিবার সকাল থেকে রত্নদ্বীপ রিসোর্টে শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন শাকিব।

এর আগে ৫ মার্চ শুক্রবার রাতে রত্নদ্বীপ রিসোর্টে জমকালো মহরত অনুষ্ঠিত হয়। নাচ, গান কেক কেটে অন্তরাত্মা’র শুভ মহরত করেন শাকিব খান। মহরতে উপস্থিত ছিলেন সিনেমাটির অভিনেতা শাহেদ শরীফ খান, প্রযোজক ও কাহিনিকার সোহানী হোসেন, পরিচালক ওয়াজেদ আলী সুমন, চিত্রনাট্যকার ফেরারী ফরহাদসহ অনেকে।

পাবনায় শুটিং শেষ হলে নাটোরে বাকি অংশের শুটিং হবে বলে ইউনিট থেকে জানানো হয়েছে। অন্তরাত্মা প্রযোজনা করছে তরঙ্গ এন্টারটেইনমেন্ট। মৌলিক গল্প নির্ভর অন্তরাত্মা সিনেমাটি রোজার ঈদে মুক্তির লক্ষ্যে নির্মিত হচ্ছে।

‘অন্তরাত্মা’ চলচ্চিত্রের প্রযোজক ইউনিভার্সাল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বির্তকির্ত সোহানী হোসেনের নিজস্ব অনেক ঘটনাই এই চলচ্চিত্রে ফুটে উঠবে বলে জানা গেছে। তবে ইউনিভার্সাল গ্রুপের বিরুদ্ধে ২৭০ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে দায়ের করা মোট ১২টি মামলা ধামাচাপার অভিযোগও উঠেছে তার বিরুদ্ধে। শুধু তা-ই নয়, মামলা দায়েরকারী কর্মকর্তাকে কৌশলে সরিয়ে দেয়ারও নানা চেষ্টা চলছে বলেও জানা গেছে।