মুজিব জন্মশতবর্ষ: কুষ্টিয়া ও বরিশাল আসছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

106
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, কুষ্টিয়া ও বরিশাল:
মুজিব জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে যােগ দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মােদির ২৬ মার্চ দু’দিনের সফরে ঢাকায় আসার কথা রয়েছে। তবে মােদির এ সফর বাস্তবায়ন হলে তিনি রবীন্দ্র স্মৃতিধন্য জেলা কুষ্টিয়া সফর করতে পারেন। এমন আভাসই দিয়েছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য সফরের প্রস্তুতির জন্য ভারতীয় অগ্রগামী দল।

ইতােমধ্যেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মােদির বাংলাদেশ সফরের সময় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের তীর্থস্থান হিসেবে পরিচিত বরিশালের উজিরপুরের সুনন্দা শক্তিপীঠ মন্দির (শ্ৰী শ্ৰী উগ্রতারা মন্দির) পরিদর্শন করতে পারেন বলেও ধারণা দিয়েছেন তারা।

এই সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মােদি কুষ্টিয়ার শিলাইদহ রবীন্দ্র কুঠিবাড়ি ও বিপ্লবী বীর বাঘা যতীনের পৈতৃক ভিটা এবং বরিশাল পরিদর্শন করবেন। এছাড়াও টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানানাে শেষে ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শন করবেন বলেও আভাস দিয়েছে একটি নির্ভরযােগ্য সূত্র।

তবে বরিশালে আসা ভারতীয় সেই দলটির আভাসই প্রকট করেছে ভারতীয় হাইকমিশনের রাজশাহী মিশনের সহকারী হাইকমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাটির কুষ্টিয়া সফর নিয়ে। তিনি ওই অগ্রগামী টিমের প্রধানও। মঙ্গলবার (৯ মার্চ) দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ায় বাউল সম্রাট ফকির লালন শাঁইয়ের আখড়াবাড়ি পরিদর্শন করেন। এদিন ছেঁউড়িয়ায় লালন একাডেমিতে একটি অনুষ্ঠানে যােগ দেন তিনি। তবে এ ব্যাপারে তারা আনুষ্ঠানিক কোনাে ঘােষণা দেননি। জেলা প্রশাসন থেকেও গণমাধ্যমকে কিছু জানানাে হয়নি।

ওই অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বাংলাদেশ-ভারত অনন্য। মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত দুই দেশের বন্ধুসুলভ সম্পর্ক বজায় আছে এবং থাকবে।

তিনি বলেন, লালনের বাণী ও তার গানকে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য এখন নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। তাকে নিয়ে গবেষণা হচ্ছে। একটা সময় ছিল একতারা ও ঢােলের মধ্য দিয়ে লালনের গান গেয়ে শােনানাে হতাে। সে সময় কী মধু ছিল লালনের গানে। বর্তমানে তাে গানের জন্য নানা বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে। তাই নতুন নতুন বাদ্যযন্ত্র ব্যবহার করে লালনের গানকে আরও বিকশিত করে তুলে তার গানকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মােহাম্মদ ওবায়দুর রহমান, কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের ট্রেজারার অজয় কুমার সুরেকা, লালন একাডেমির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান, লালন একাডেমির সদস্য শিল্পী আব্দুল কুদ্দুস ও অন্যান্য সদস্য শিল্পীসহ লালন অনুরাগীরা।

নরেন্দ্র মােদি কুষ্টিয়া সফরে আসছেন- এমন প্রশ্ন করা হলে কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মােহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, এ ব্যাপারে আমরা এখনাে সরকারিভাবে কোনাে তথ্য পাইনি। এমন কোনাে তথ্য পেলে অবশ্যই আপনাদেরকে জানাবো।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য সফরের প্রস্তুতির জন্য ভারতীয় অগ্রগামী দলের প্রধান ভারতীয় হাইকমিশনের রাজশাহী মিশনের সহকারী হাইকমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাটির কুষ্টিয়া সফরের কারণ জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, লালন একাডেমির একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মুলত: তিনি কুষ্টিয়া এসেছিলেন।

ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর সফরের সম্ভাব্যতা যাচাই করে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে পরে আনুষ্ঠানিক ঘােষণা আসতে পারে।

এদিকে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মােদি বরিশাল সফর করতে পারেন, এমন খবরে ইতােমধ্যেই তৎপর হয়ে পড়েছেন বরিশালের স্থানীয় প্রশাসন। শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় হাইকমিশন এবং ওই দেশের স্পেশাল ফোর্সের দুটি দল বরিশাল এসে সম্ভাব্য সফরের খুঁটিনাটি সব বিষয় খোঁজ খবর নিয়েছেন বলেও নিশ্চিত করেছেন বরিশালের জেলা প্রশাসক।

জানা গেছে, উপমহাদেশের ৫১টি সতী পীঠের অন্যতম শিকারপুরের সুনন্দ শক্তিপীঠ বা উগ্রতারা মন্দির। যা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম তীর্থস্থান হিসেবে বিবেচিত। সম্ভাব্য সফরের জন্য বরিশালের নিরাপত্তা, যাতায়াত, আবাসন ও মেডিকেল সুবিধাসহ সংশ্লিষ্ট সব সুযােগ-সুবিধাদি দেখতে শুক্রবার সকালে বরিশাল সফর করে ওই দল। তাদের নেতৃত্বে ছিলেন ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাটী এবং ভারতীয় হাইকমিশনের ফার্স্ট সেক্রেটারি অনিমেষ চৌধুরী।

জেলা প্রশাসনের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সফরে এলে তিনি সনাতন ধর্মের তীর্থ স্থান উজিরপুরের ‘সুনন্দা শক্তিপীঠ মন্দির পরিদর্শন করতে পারেন বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানাে হয়েছে।

অগ্রগামী দলটি উজিরপুরের ‘সুনন্দা শক্তিপীঠ মন্দিরে যাতায়াত ব্যবস্থা, সফরকালে মেডিকেল সুবিধা, আবাসন সুবিধা এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা সম্পর্কে খোঁজখবর নেন। তাদের দুটি দল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং উজিরপুরের ‘সুনন্দ শক্তিপীঠ মন্দির পরিদর্শন করেন।

এদিকে, ভারতীয় সরকার প্রধান শ্রী নরেন্দ্র মোদীর কুষ্টিয়া ও বরিশাল সফরের খবরে দারুণ উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন অঞ্চল দুটির সুধীমহল।