রাণীশংকৈলে প্রদীপের আগুনে ১৯টি বাড়ি ভস্মিভূত

16
Print Friendly, PDF & Email

জুনাইদ কবির, ঠাকুরগাঁও:
ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার পূর্ব রাতোর গ্রামে (হিন্দু পাড়া) বুধবার (৩ ফ্রেরুয়ারী) সন্ধ্যায় আগুন লেগে ১৯টি বাড়ির প্রায় ৩০টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এতে গরু-ছাগল ও ঘরের আসবাবপত্র, মালামালসহ প্রায় ১৫/১৬ লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এলাকাবাসী ও প্রতক্ষদর্শীরা জানায়, রাতোর গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায় পাথানুর বাড়ির ঠাকুর ঘরে সন্ধ্যা প্রদীপ জ্বালাতে গিয়ে এই আগুনের সূত্রপাত হয়। হঠাৎ করে আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে চারিদিক। খবর পেয়ে রাণীশংকৈল ও পীরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিটের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। আগুনে ২ শিশু দগ্ধ হলে তাদের চিকিৎসার জন্য ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল সুলতান জুলকার নাইন কবির স্টিভ ও উপজেলা চেয়ারম্যান শাহরিয়ার আজম মুন্না ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সে সময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম, রাতোর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান শরৎ চন্দ্র, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আকতার হোসেন, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সবুর, স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো হলো- বুদ্ধি নাথ রায়, ভেনসা রায়, ঘগেন চন্দ্র, পাথানু মোহন, মাঝিল রায়, কামিনী বালা রায়, ধনদেব রায়, বকুল চন্দ্র, ফুলশরি বালা, হরিপদ রায়, সফিন চন্দ্র, গোবিন্দ রায়, আলতা রায়, তুরেন চন্দ্র, গদা রায়সহ অনেকে।

এ সময় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারে সদস্যদের মাঝে নগদ ২হাজার করে টাকা, কম্বল ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোহেল জুলকার নাইন কবির স্টিভ বলেন, ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে পরবর্তী সাহায্যের জন্য লিখিত আবেদন চাওয়া হয়েছে। আবেদন পেলে সরকারিভাবে তাদের সহযোগিতা করা হবে।