তারুণ্যের বাতিঘর সনৎ নন্দী দাদার শুভ জন্মদিন সার্থক হোক

56
Print Friendly, PDF & Email

আদিত্য শাহিন, ফেসবুক থেকে:
১৯৯৩ সালে যখন কুষ্টিয়ায় দৈনিক সূত্রপাত চালাচ্ছি, তখন আমার কোনো বাতিঘর ছিল না। আন্দোলনের বাজার পত্রিকা চালাতে গিয়ে অনুসরনের মতো কিছু মানুষ পেলাম। সম্পাদক মনজুর এহসান চৌধুরি তার পত্রিকার শক্তিটি খুব ভালো বুঝতেন। সংবাদের শক্তিও বুঝতেন। কোনো কোনো জনগুরুত্বপূর্ণ বিষয় তিনি প্রজেক্ট করতেন। বলতেন, এটি শুধু আন্দোলনের বাজারে ছাপলে হবে না। এর জন্য ঢাকায় সনৎ নন্দীর আশ্রয় নিতে হবে। তিনি সনৎ নন্দীকে কাকা সম্বোধন করেন। চিন্তা ছিল চিত্রবাংলায় সচিত্র প্রতিবেদন করতে হবে। এই কাজের জন্য আমাদের দুয়েকদিন গলদঘর্ম হতে হতো। চিন্তায় থাকতাম, ঢাকায় গিয়ে লেখাটি টিকবে কি-না। সপ্তাহখানেক পর যখন কয়েক পৃষ্ঠার সচিত্র প্রতিবেদন দেখতাম, অন্যরকম প্রাণিত হতাম। তার কোনো তুলনা নেই।

ঢাকায় এসে ঝড় ঝাপটার মধ্যে সনৎ দার মতো মানুষের সামনে যাওয়ার সুযোগ হয়নি। সত্যি কথা বলতে, প্রেস ক্লাবের বারান্দা মাড়ানোর সুযোগও হয়নি। অবশ্য বলতেই হবে বছর দশ পনের আগে জাতীয় প্রেস ক্লাবও আজকের মতো এমন প্লাটফরম ছিল না। আমারও কখনো সময় ও প্রয়োজন হতো না প্রেস ক্লাবে যাওয়ার।

এখন সনৎ দা’কে পেয়ে গেছি এক সহজ মানুষ হিসেবে। খুব কাছে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে। বছর পঁচিশ ত্রিশ আগের সেই সনৎ দা পরিবর্তনহীন, একই রকম রয়ে গেছেন। চেহারায় মননে প্রত্যয়ে মানবিকতায়।

এখন সনৎ দার সঙ্গে প্রায়শ দেখা হয়। সাংবাদিকতা পেশায় আমরা বেঁচে বর্তে আছি। ভালোই আছি। খুব ভালো আছি। সনৎ দা বলেন, যে জীবন যাপন করছি, তা অনেক ভালো। তিনি দারুণ তৃপ্ত তার জীবন নিয়ে। বলেন, এই যুগে কোনো প্রাপ্তির জন্য মোটেও চাপ নিও না। স্বাভাবিক গতিতে যা কিছু হচ্ছে তাকেই স্বাগতচিত্তে গ্রহণ করো। জীবন তো এমনই।

সনৎ দা, দীর্ঘায়ু লাভ করুন। এই ধরায় আপনার জন্ম সার্থক হোক। শুভ জন্মদিন।

লেখক: সিনিয়র বার্তা সম্পাদক, চ্যানেল আই।