ক্রেডিট কার্ড থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে মার্কিনিরা, ব্যয় কমাতে ছাড়ছেন ক্রেডিট কার্ড

10
Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন রিপোর্ট:
সম্পদের সহজলভ্যতা আর অর্থের জোগানের মধ্যে তফাৎ বাড়ছেই প্রতিদিন। পৃথিবীর সব প্রান্তেই বাড়ছে আয় বৈষম্য। করোনা মহামারি ধনী গরিবের এ তফাৎ বাড়িয়েছে কয়েক গুণ। এবার সেই ধাক্কা লাগল উচ্চ মধ্যবিক্তের ‘শখের’ ক্রেডিট কার্ড লেনদেনের ওপরও। বাড়তি খরচ থেকে বাঁচতে মার্কিন মুল্লুকে ব্যাংকের বিশেষ সুবিধার নামে দেওয়া বিশেষ খরচের খাত ক্রেডিট কার্ড থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে সাধারণ মানুষ।

বিলাসজাত পণ্য দূরে থাক, আয় কমে যাওয়ায় মার্কিনিদের এখন খাবার কেনার ফুসরতই কমেছে ঢের। করোনা মহামারি থেকে মুক্তির পথে হাঁটছে বিশ্ব। এসেছে ভ্যাকসিন। তবে গত এক বছরের অচল অবস্থার ধাক্কা কাটাতে সময় লাগবে কয়েক বছর। মানুষের হাতে এখন নগদ টাকার সংকট। আগামীতে কবে কী পরিমাণ আয় হবে বা বেকার হয়েছে যারা তাদের চাকরির নিশ্চয়তাও নেই ততটা। বন্ধ হওয়া ব্যবসায় বা উৎপাদনমুখী প্রতিষ্ঠানগুলোও কবে নাগাদ চালু হবে তার ঠিক নেই। তাই খরচের লাগাম না টেনে উপায় নেই যে কারো জন্যই।

খুব প্রয়োজন না হলে এখন মানুষ কেনা কাটা করছেন না। শখের খাবারটি রেঁস্তোরায় গিয়ে খাওয়ার প্রবণতাও কমেছে। এমনকি বিলাসবহুল গাড়ি, পারিবারিক বা সামাজিক অনুষ্ঠান সীমিত পরিসরে করার প্রবণতাও বেড়েছে। অনেকেতো কম দূরত্বের গন্তব্যে হেটে যাচ্ছেন। লম্বা দূরত্বের জন্য ভর করছেন নিজের দু চাকার বাই সাইকেলের ওপর। এর সবই ব্যয় সংকোচন নীতিগ্রহণের কারণে হচ্ছে।

মাত্র একমাস আগের পরিসংখ্যান যদি দেখা যায় তাহলে (ডিসেম্বর-২০২০) দেশটির বেকারত্বের হার ছিল ৬ দশমিক ৭ শতাংশ এবং আট মাসের মধ্যে প্রথমবার শ্রম বাজার থেকে প্রচুর মার্কিন চাকরিচ্যুত হয়। যেখানে এককালীন ৬০০ ডলারের চেক হয়তো যথেষ্ট নয়। অন্যদিকে জো বাইডেনের প্রতিশ্রুত ১ দশমিক ৯ ট্রিলিয়ন ডলারের সহায়তা তহবিলও রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের দ্বারা বাধার মুখে পড়েছে।

ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক-এর উদ্ধৃতি দিয়ে সংবাদ মাধ্যম অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস (এপি) জানায়, ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহার বিদায়ী বছরের অক্টোবরে ৬ দশমিক ৭ শতাংশ কমেছে। এর মানে সাধারণ মানুষ তখনও মহামারির ধাক্কা পুরোপুরি সামলাতে পারছিল না।

করোনার আগে একই সময়ে যে পরিমাণ ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহার হয়েছে তার তুলনায় করোনা বছরের একই সময়ে এক শতাংশ ব্যবহারকারী ক্রেডিট কার্ড সুবিধা গ্রহণ করেছেন।

ক্রেডিট কার্ডের লেনদেন সর্বোপরি নতুন বছরের জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত ১১ শতাংশ কমেছে যুক্তরাষ্ট্রে। জানায় এপি।
তবে, অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের ওই প্রতিবেদনে কত শতাংশ মার্কিন নাগরিক তাদের ক্রেডিট কার্ডের হিসাব বন্ধ করেছেন, সে বিষয়ে কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি। এর আগে এরকম একটি জরিপ প্রকাশের পর সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্রেডিট কার্ডে লেনদেনের প্রবণতা আরও কমে যায় বলে ধারণা করা হয়।
অন্যদিকে করোনার সময়ে শিক্ষার্থী এবং তরুণদের মধ্যে কর্মসংস্থান সংশ্লিষ্ট ঋণগ্রহণের হার বেড়েছে।