করোনার ভয়ে এয়ারপোর্টে লুকিয়ে তিন মাস!

2
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
নভেল করোনাভাইরাসের ভয়ে বাড়ি না ফিরে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো বিমানবন্দরে তিন মাস ধরে লুকিয়ে ছিলেন আদিত্য সিং। অবশেষে তিনি ধরা পড়েছেন। সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে এ খবর জানিয়েছে।

ভয় মানুষকে কতটা বেপরোয়া করে দিতে পারে, তার আরেকটি উদাহরণ সামনে এলো। করোনার ভয়ে শিকাগো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ন্ত্রিত চলাচলের সুরক্ষিত এলাকায় তিন মাস ধরে লুকিয়ে ছিলেন ৩৬ বছর বয়সী আদিত্য সিং। ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের বাসিন্দা আদিত্য পুলিশকে জানিয়েছেন, করোনার ভয়ে তিনি বিমানে চড়ে বাড়ি ফেরার সাহস পাননি।

আদিত্য সিং বর্তমানে বেকার। তিনি ব্যস্ত শিকাগো বিমানবন্দরের ‘রেসস্ট্রিকটেড সিকিউরিটি জোনে’ নিরাপত্তা বাহিনী ও এয়ারপোর্ট কর্মীদের চোখ এড়িয়ে থেকে যান। আদিত্য এয়ারপোর্টের অপারেশন ম্যানেজারের অফিসের একটি ব্যাজও চুরি করেছিলেন। অপারেশন ম্যানেজার গত অক্টোবরে ব্যাজটি পাওয়া যাচ্ছে না বলে পুলিশকে জানিয়েছিলেন।

শেষ পর্যন্ত ইউনাইটেড এয়ারলাইনসের কর্মীরা আদিত্যকে ধরে ফেলেন। আদিত্যকে বিমানবন্দরের সুরক্ষিত এলাকায় ঘুরতে দেখে তাঁদের সন্দেহ হয়। তখন তাঁরা আদিত্যকে প্রশ্ন করতে থাকেন। আদিত্য তখন সেই ব্যাজ দেখান। সঙ্গে সঙ্গে পুলিশকে খবর দেন ইউনাইটেড এয়ারলাইনসের কর্মীরা। এরপর পুলিশ আদিত্যের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ দায়ের করে। তাঁকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। বিচারক রায় দেন  আদিত্য এক হাজার ডলার মুচলেকা দায়ে জামিন পেতে পারেন। কারণ, পুলিশের রেকর্ডে তাঁর কোনো নাম নেই। তবে ওই বিমানবন্দরে আদিত্য আর ঢুকতে পারবেন না।

বিচারক সুসানা অর্টিজ বলেন, এতদিন ধরে আদিত্য কীভাবে বিমানবন্দরে লুকিয়ে রইলেন, সেটা ভেবে তিনি অবাক হয়ে গেছেন। বিচারক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা বাড়ানোর ও যাত্রীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার ওপর জোর দেন।

তবে আদিত্য কেন শিকাগো গিয়েছিলেন, সেখানে তাঁর পরিচিত কেউ আছে কি না, তা তাৎক্ষণিক জানতে পারেনি পুলিশ।