কুষ্টিয়ায় বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙচুর : তিন আসামি তিন দিনের রিমান্ডে

12
Print Friendly, PDF & Email

কুষ্টিয়া থেকে করস্পন্ডেন্ট:
কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার কয়া মহাবিদ্যালয়ে স্থাপিত বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙার ঘটনায় আসামি ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা আনিছুর রহমান, সবুজ হোসেন ও হৃদয় আহমেদকে তিন দিন করে রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কুমারখালী আমলি আদালতে আজ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে আধা ঘণ্টাব্যাপী শুনানি শেষে বিজ্ঞ বিচারক সেলিনা খাতুন তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আদালতে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ডের বিপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে আসামিদের জামিন আবেদন করেন।

তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন মঞ্জুর করার পর কঠোর নিরাপত্তায় আসামিদের জেলা কারাগারে নেওয়া হয়। এর আগে রিমান্ড শুনানির জন্য কুষ্টিয়া কারাগার থেকে বেলা ১১টার দিকে আসামিদের আদালতে নেওয়া হয়।

এ ঘটনার পেছনে কোনো জঙ্গি বা রাজনৈতিক গোষ্ঠীর মদদ এবং অন্য কেউ জড়িত আছে কি না, সে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে গত শনিবার বিকেলে একই আদালতে হাজির করে আসামিদের প্রত্যেকের সাত দিন করে রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) রাকিবুল হাসান।

রিমান্ড মঞ্জুর হওয়ার পর রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়দেব বিশ্বাস সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। অন্যদিকে, আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবু সাঈদ বলেন, ‘দায়ের করা অভিযোগের সঙ্গে আসামিরা সম্পৃক্ত নন। এ মামলায় আসামিদের রিমান্ডের প্রয়োজন হয় না।’

এদিকে, গ্রেপ্তারকৃত ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা আনিছুর রহমানকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিয়াউল ইসলাম স্বপন বলেন, ‘কয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আনিছুর রহমানকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।’

গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে কুমারখালীর কয়া মহাবিদ্যালয়ের সামনে স্থাপিত ব্রিটিশবিরোধী বিপ্লবী বাঘা যতীনের ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হয়। কলেজের নৈশপ্রহরী খলিল মিয়া দুটি মোটরসাইকেলে চারজনকে চলে যেতে দেখেছেন বলে জানান। ঘটনার পর গত শুক্রবার রাতে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন কয়া মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ হারুনুর রশিদ। এতে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করা হয়। পরের দিন প্রত্যক্ষদর্শীর ওপর ভিত্তি করে চারজন আসামি শনাক্ত ও তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বাচ্চু নামের অপর এক আসামি পলাতক রয়েছেন।