কুষ্টিয়ায় করলা চাষে লাভ বেশি

8
Print Friendly, PDF & Email

মুন্সী হাবিব রহমান, কুষ্টিয়াঃ
কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় করলা চাষ করে লাভবান হচ্ছে কৃষকরা। মানসম্মত বীজ ব্যবহার ও পরিচর্যার কারণে করলার ভালো ফলন পাচ্ছে তারা।

জানা গেছে, উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়ায় করলা ভালো জন্মে। শীতের দু’এক মাস ছাড়া প্রায় সারা বছরই করলা চাষ হয়ে থাকে। গত বছর মিরপুর উপজেলায় ৫ হেক্টর জমিতে করলা চাষ হয়েছিল। বর্তমানে ১০ হেক্টর জমিতে করলা চাষ হয়েছে। দিন দিন এ এলাকায় বাড়ছে করলা চাষ।

উপজেলার শিংপুর এলাকার সালামত আলী নামে এক কৃষক জানান, দুই বিঘা জমিতে চাষ করে এ পর্যন্ত ৬০ মণ করলা বিক্রি করেছেন। মাঠ থেকেই প্রতি মণ করলা ৮শ থেকে ১ হাজার টাকা দরে বিক্রি করতে পারছেন।

ধুবাইল ইউনিয়নের আজমপুর গ্রামের আব্দুস সামাদ এবার তিন বিঘা জমিতে করলার আবাদ করেছেন। তিনি জানান, ৬০ হাজার টাকা খরচ করে এ যাবৎ পর্যন্ত এক লাখ টাকার করলা বিক্রি করেছেন। এখনো আরও এক লাখ টাকার করলা বিক্রি করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।

একই এলাকার কৃষক আনোয়ার বলেন, ‘উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শে এবার দুই বিঘা জমিতে করলার আবাদ করেছি। ফলনও বেশ ভালো হয়েছে। বিঘা প্রতি ২৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। করলা বিক্রি করে বিঘা প্রতি ৪৫ হাজার টাকা লাভ করেছি।’

ধুবাইল ইউনিয়ন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল আলিম জানান, করলা চাষে লাভ বেশি। কুষ্টিয়া ও যশোর কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কৃষকরা এখন করলা চাষে এগিয়ে আসছে।

মিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, ‘অল্প পরিশ্রমে ভালো লাভ হওয়ায় এ উপজেলায় করলার চাষ দিন দিন বাড়ছে। আমরা বিভিন্ন ধরনের পরামর্শসহ কৃষকদের সহযোগিতা করে থাকি।’