ভ্রমণপিপাসুদের জন্য খুলে দিল বড় সর্দারবাড়ি

44

সংস্কারকাজ শেষে পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হলো নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের বড় সর্দারবাড়ি। ভ্রমণপিপাসু মানুষ এখন চাইলেই ঘুরে আসতে পারবেন বড় সর্দারবাড়ি।

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের পরিচালক কবি রবীন্দ্র গোপ বাড়িটির দ্বার উন্মুক্ত করেন।বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের ঐতিহাসিক বড় সর্দারবাড়ি সংস্কারের জন্য দীর্ঘদিন বন্ধ রাখা হয়।

২০১২ সালের ১৪ ডিসেম্বর বড় সর্দারবাড়ির সংস্কারকাজ শুরু হয়। পরে গত বছর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংস্কারকৃত বাড়িটি শুভ উদ্বোধন করেন।বড় সর্দারবাড়ি প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এটি খোলা থাকবে। প্রবেশ করতে বাংলাদেশি নাগরিক জনপ্রতি ৩০ টাকা ও বিদেশি নাগরিক জনপ্রতি ১০০ টাকা।

তবে বুধবার, বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক ছুটিসহ সরকারি ছুটির দিনগুলোতে ফাউন্ডেশন বন্ধ থাকে।লোক ও কারুশিল্প জাদুঘরে প্রবেশ পথেই বড় সর্দারবাড়ি। মোট ২৭ হাজার ৪০০ বর্গফুটের ভবনের নিচতলায় ৪৭টি ও দোতলায় ৩৮টি কক্ষ।

দ্বিতীয়তলার বাড়িটি দুটি ভাগে তৈরি হয়েছে। মধ্যভাগে লাল রঙের বর্গাকৃতি ভবনটি মোগল আমলের স্থাপত্যশৈলীর কথা মনে করিয়ে দেয়।ইতিহাস থেকে জানা যায়, প্রাচীন মুসলিম শাসকদের আমলে ১২৯৬ থেকে ১৬০৮ সাল পর্যন্ত সোনারগাঁ বাংলার রাজধানী ছিল। সে সময় সোনারগাঁ মুসলিম সংস্কৃতিরও কেন্দ্র ছিল।

১৬০৮ সালে মোগল আমলে তদানীন্তন জাহাঙ্গীরনগর ও বর্তমান ঢাকায় রাজধানী স্থানান্তর হলে সোনারগাঁয়ের প্রশাসনিক ও অর্থনৈতিক আধিপত্য হ্রাস পায়।

তবে এখনও বিভিন্ন ঐতিহাসিক ভবনের মধ্যে সোনারগাঁয়ের আগের জৌলুস নজরে আসে। সেগুলোরই একটি এই বড় সর্দারবাড়ি। বিভিন্ন হাত ঘুরে সবশেষে এক জমিদারের কাছে যায়। তিনি দেশত্যাগ করার পর থেকেই ভবনটি পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে। তবে এখন আবার এর হৃতরূপ ও পুরনো জৌলুস ফিরিয়ে আনা হচ্ছে।