কোভিড-১৯: ভারতে ৪০ হাজার মানুষ ‘সংক্রমিত’ মাত্র একজনের কাছ থেকে

12
Print Friendly, PDF & Email

ইন্টারন্যাশনাল নিউজ ডেস্ক:
ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ পাঞ্জাবের কর্তৃপক্ষ সেখানকার ২০টি গ্রামের ৪০ হাজার বাসিন্দাকে কোয়ারেন্টাইনে আটক করেছে।

কারণ সন্দেহ করা হচ্ছে, তাদের সবার দেহে এই রোগ সংক্রমিত হয়েছে মাত্র একজনের কাছ থেকে।

সত্তর-বছর বয়সী বলদেব সিং সম্প্রতি করোনা ভাইরাসে মারা গেছেন। আর এই ঘটনা প্রকাশিত হয়েছে তার মৃত্যুর পর।

এই ব্যক্তি একজন শিখ ধর্মপ্রচারক। সম্প্রতি তিনি ইতালি এবং জার্মানি সফর শেষে দেশে ফেরেন।

কিন্তু করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকানোর জন্য স্বেচ্ছায় জন-বিচ্ছিন্ন থাকার যেসব উপদেশ রয়েছে তিনি তার কোনওটাই মেনে চলেননি বলে কর্মকর্তারা বিবিসিকে জানান।

ভারতে মোট করোনা ভাইরাস রোগীর নিশ্চিত সংখ্যা ৬৪০। এর মধ্যে ৩০ জন রোগী পাঞ্জাবের। তবে বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, ভারতে করোনা ভাইরাস রোগী আসল সংখ্যা অনেক বেশি হবে।

ভারতে রোগীর পরীক্ষার হারও অনেক কম। তবে সম্প্রতি পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানোর জন্য পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

১৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশ ভারতে করোনা ভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে তার ফল হবে বিপর্যয়কর।

তার মৃত্যুর কিছুদিন আগে শিখ ধর্মের একটি উৎসব হোলা মহল্লা উপলক্ষে বলদেব সিং বড় ধরনের এক জনসমাবেশে যোগ দিয়েছিলেন।

ছয়দিনব্যাপী ওই উৎসবে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজার মানুষ যোগ দিয়েছিলেন।

মসিংয়ের মৃত্যুর পর তার ১৯ জন আত্মীয়ের দেহে পরীক্ষায় করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়ে।

এ পর্যন্ত আমরা ৫৫০ ব্যক্তিকে শনাক্ত করতে পেরেছি যারা সরাসরিভাবে তার সংস্পর্শে এসেছিল। কিন্তু এই সংখ্যা এখন বাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন পাঞ্জাবের একজন পুলিশ কর্মকর্তা।

তিনি বলছেন, সিং যেখানে থাকতেন তার আশেপাশে ১৫টি গ্রাম আমরা এ পর্যন্ত সিল করে দিয়েছি। পাশের জেলার পাঁচটি গ্রামও লকডাউন করা হয়েছে। তবে ভারতে এত বেশি সংখ্যায় মানুষকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানোর ঘটনা এটাই প্রথম নয়।

রাজস্থানের ভিলওয়ারা শহরের একদল ডাক্তার যারা নিজেরাই করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন, তাদের মাধ্যমে বহু লোকের মধ্যে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ওই শহরের কাছের গ্রামগুলোতে ৭ হাজার মানুষ এখন কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন।

ভারতে এখন ২১ দিনব্যাপী লকডাউন চলছে। বিবিসি বাংলা।