ময়মনসিংহে করোনা মোকাবেলায় ব্যাপক তৎপরতা

38
Print Friendly, PDF & Email

ডিষ্ট্রিক্ট করসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ:
করোনা মোকাবিলায় ময়মনসিংহে প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ, পুলিশ ও সেনা সদস্যদের তৎপরতা বৃদ্ধির ফলে এ ক্ষেত্রে ব্যাপক ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে ময়মনসিংহের জনজীবনে।

বুধবার সকাল থেকে করোনা মোকাবিলায় সেনা টহল শুরু হয়েছে ময়মনসিংহ নগরীর বিভিন্ন রাস্তায়। সেনা সদস্যরা সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে জনসাধারণকে নিজ নিজ বাসায় অবস্থানসহ করনীয় বিষয়গুলো সম্পর্কে জনসাধারণকে অবগত করছেন। এ কাজে সেনাবাহিনীর ৪ প্লাটুন সেনা সদস্য নিয়জিত রয়েছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কমকর্তা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ তারাও মাঠে তৎপর রয়েছেন। এছাড়া র‌্যাব, পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরাও সারাদিন শহড়জুড়ে করোনা প্রতিরোধে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা থাকায় বৃহষ্পতিবার সকাল থেকেই নগরীর রাস্তা ঘাট সর্ম্পূণ ফাঁকা ছিল। প্রশাসনিক তৎপরতাও বেশ লক্ষ্য করা গেছে।

গত এক সপ্তাহ জুড়ে মানুষকে সচেতন করতে পুলিশ, প্রশাসনসহ সর্বমহলের ব্যাপক তৎপরতা অব্যাহত রেখেছেন। একই সাথে পুলিশ প্রশাসন, র‌্যাব, স্বাস্থ্য বিভাগসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধিতে পানির ড্রাম ও বেসিন বসিয়ে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ায় উদ্বুদ্ধ করে সাধারণ মানুষকে। তথ্য অফিস শহরজুড়ে প্রচারণা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ শহরের চরপাড়া, গাঙ্গিনারপার, টাউন হলসহ বিভিন্ন পয়েন্টে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করেছেন। এছাড়াও শহরের প্রতিটি রাস্তায় ব্লিচিং পাউডার মিশ্রিত পানি ছিটাচ্ছেন করোনা সংক্রামক মোকাবিলায়। সিটি করপোরেশন, স্বাস্থ্য বিভাগ, জেলা প্রশাসন করোনা প্রতিরোধে লিফলেট বিতরণ ও মাইকিং করে যাচ্ছেন।

মেয়র একরামুল হক টিটু, জেলা প্রশাসক মোঃ মিজানুর রহমান ও পুলিশ সুপার আহমারুজ্জামান, করোনা প্রতিরোধে সবাইকে ঘরে অবস্থান ও মাস্ক পরিধানসহ সংশ্লিষ্ট করনীয় নির্দেশনাবলী আবশ্যিকভাবে সবাইকে মেনে চলার জন্য বিষেষভাবে অনুরোধ জানিয়েছেন। সর্বশেষ বৃহষ্পতিবার পর্যন্ত ৭৩৮ জন হোম কোয়ারেন্টিনে ছিল। এরমধ্যে ৩০০ জন সুস্থ হয়ে কোয়ারেন্টিন মুক্ত হয়েছে। বর্তমানে জেলায় ৪৩৮ জন হোম কোয়ারান্টাইনে রয়েছে বলে সিভিল সার্জন ডা. এ বি এম মশিউল আলম জানান।