জনগণকে ঘরে রাখতে চলছে সেনা-পুলিশের জোরদার টহল

23
Print Friendly, PDF & Email

স্পেশাল করসপন্ডেন্ট, ঢাকা:
সংক্রমণ ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও লোকজনকে ঘরে রাখতে টহল জোরদার করে মাঠ পর্যায়ে কাজ করছে সশস্ত্রবাহিনী। সারাদেশের পাড়া-মহল্লা ও প্রধান প্রধান সড়কে টহল দিচ্ছে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর যৌথ দল। স্থানীয়  প্রশাসনকে সাথে নিয়েই কাজ করছেন তারা।

এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) থেকে ঢাকার রাস্তায় চলাচল নিয়ন্ত্রণ করছে পুলিশ। এ সময় সেনাবাহিনীও মাঠে রয়েছে। প্রয়োজন ছাড়া কাউকে রাস্তায় থাকতে দেওয়া হচ্ছে না। কেউ বের হলে তাঁকে পুলিশের জেরার মুখে পড়তে হচ্ছে। তবে সংবাদপত্রসহ জরুরি সেবাগুলো এর আওতামুক্ত রয়েছে।

গত বুধবার থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কাজ শুরু করেছে সশস্ত্র বাহিনী। রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে নাগরিকদের সঙ্গনিরোধ বিষয়টি নিশ্চিত করছে তারা। 

আজ সরেজমিনে দেখা গেছে, রাজধানীর বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিচ্ছে সেনাবাহিনী। এ সময় গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলোতে করোনা ভাইরাস নির্মূল করতে সচেতনতামূলক মাইকিং করেও প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা।

মাইকিংয়ে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ‘করোনা প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার করুন, দোকানপাট বন্ধ রাখুন, বাসায় অবস্থান করুন অযথা রাস্তাঘাটে ঘোরাফেরা করবেন না।’

পুরান ঢাকার রায় সাহেব বাজের নিত্যপণ্যের বাইরে দোকানপাট খোলা রাখায় বেশ কয়েকটি দোকান বন্ধ করে দিয়েছে সেনাবাহিনী। মহল্লা-মহল্লায় ও অলিগলিতে ঢুকে মানুষকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানাচ্ছেন তারা। রাজধানীজুড়েই টহল দিচ্ছেন সেনাসদস্যরা।

সেনাসদস্যরা সিভিল প্রশাসনের সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবেলায় কাজ করছে। প্রাথমিকভাবে তারা বিদেশফেরত যারা হোম কোয়ারেন্টাইন মেনে চলছে না, তাদের তদারক করছেন। মূলত তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখার পাশাপাশি ২-৪ জনের বেশি লোক যাতে জড়ো না হয় এবং জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়া লোকজন যাতে নির্দিষ্ট দূরত্ব মেনে চলাফেরা করে- সেটাও নিশ্চিত করছে সেনাবাহিনী।